রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের জীবনের নানা মুহূর্ত

সদ্য প্রয়াত ব্রিটিশ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ।
সদ্য প্রয়াত ব্রিটিশ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ।সংগৃহীত ছবি

বাবা আলবার্ট, ডিউক অব ইয়র্ক এবং মা প্রথম এলিজাবেথ বোওস-লিয়নের কোলে ছোট দ্বিতীয় এলিজাবেথ।

ছোটবেলায় বেশ লাজুক প্রকৃতির ছিলেন এলিজাবেথ, তখনও ব্রিটিশ বংশধারা অনুযায়ী তিনি সিংহাসনের উত্তরাধিকারী ছিলেন না।

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ এবং তার ছোট বোন মার্গারেট রোজের প্রাথমিক শিক্ষা শুরু হয়েছিল বাড়িতেই।

অষ্টম রাজা এডওয়ার্ড সিংহাসন ত্যাগ করার পর রাজা হিসেবে ইংল্যান্ডের সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হন ষষ্ঠ জর্জ। আর রাজকুমারী হিসেবে মনোনীত হন দ্বিতীয় এলিজাবেথ।

১৯৪৭ সালে ফিলিপ মাউন্টব্যাটেনকে বিয়ে করেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। পরে ফিলিপ 'ডিউক অব এডিনবরাহ' নামে পরিচিত হন।

১৯৪৮ সালে রানির কোলজুড়ে আসে তাদের প্রথম সন্তান প্রিন্স চার্লস। পরে ১৯৫০ সালে জন্ম নেয় তাদের দ্বিতীয় সন্তান প্রিন্সেস অ্যান।

১৯৫২ সালে মারা যান রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের বাবা রাজা ষষ্ঠ জর্জ। রানির বয়স তখন মাত্র ২৫ বছর।

বাবার মৃত্যুর পর সিংহাসনে আসীন হন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। ১৯৫৩ সালে ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবেতে রানি হিসেবে তার অভিষেক হয়।

রানি হিসেবে সিংহাসনে বসার পর বাকিংহাম প্যালেস থেকে দেশের নাগরিকদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ এবং তার স্বামী কিং ফিলিপ।

রানি এলিজাবেথের প্রথম সন্তান প্রিন্স চার্লসকে 'প্রিন্স অব ওয়েলস'র মুকুট পরিয়ে দেন রানি নিজেই। যদিও ৯ বছর বয়সেই তিনি প্রিন্স অব ওয়েলসের উপাধি পেয়েছিলেন। তবে রানি এলিজাবেথ চেয়েছিলেন উপযুক্ত বয়সের পরই নিজের কর্তব্যগুলো বুঝে নেবেন তিনি।

১৯৭৭ সালে রানি এলিজাবেথ তার সিংহাসনে আরোহনের ২৫ বছর সম্পন্ন করেন। সে সময় তিনি বিভিন্ন রাজ্য ঘুরে ঘুরে সাধারণ জনগণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

১৯৮১ সালে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের প্রথম সন্তান প্রিন্স চার্লস বিয়ে করেন লেডি ডায়ানা স্পেন্সারকে। তাদের দুই সন্তান রয়েছেন। প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে ডিভোর্সের পর ১৯৯৭ সালে ডায়ানা এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন।

প্রিন্সেস ডায়ানার মৃত্যুর পর শ্রদ্ধা জানাতে বাকিংহাম প্যালেসের বাইরে বের হয়ে আসেন এলিজাবেথ-ফিলিপ দম্পতি।

২০০২ সালে ব্রিটেন শাসনের ৫০ বছর পূর্ণ করেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। সেই উৎসবে যোগ দিয়েছিল সারা দেশের মানুষ।

প্রিন্সেস ডায়ানার মৃত্যুর পর ২০০৫ সালে বান্ধবী ক্যামিলা পার্কারকে বিয়ে করেন প্রিন্স চার্লস। রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথও উপস্থিত ছিলেন সেখানে।

৮০তম জন্মদিনেও হাস্যোজ্জ্বল ছিলেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। পড়ছিলেন নানা মানুষের পাঠানো জন্মদিনের শুভেচ্ছাপত্র।

রাজপরিবারে আরেক আনন্দঘন মুহূর্ত এসে উপস্থিত হয়, যখন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের নাতি প্রিন্স উইলিয়াম ও তার দীর্ঘদিনের প্রেমিকা ক্যাথেরিন মিডলটন বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হন।

২০১২ সালে লেইসেস্টার ভ্রমণের মাধ্যমে রানি তার শাসনকালের ডায়মন্ড জুবিলি উদযাপন করেন।

৯০তম জন্মদিনে পুরো পরিবারের সঙ্গে বাকিংহাম প্যালেসের বারান্দায় এসে দাঁড়ান রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। উপভোগ করেন রয়্যাল এয়ারফোর্সের মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনী।

জীবদ্দশায় নিজের তৃতীয় প্রজন্মও দেখে যেতে পেরেছেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। নাতি ডিউক অব সাসেক্স হ্যারির ছেলে আর্চির সঙ্গে বেশ কিছু সুন্দর মুহূর্ত রয়েছে তার।

২০২১ সালে মারা যান রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের স্বামী কিং ফিলিপ। প্রায় ৬০ বছরেরও বেশি সময়ের দাম্পত্য জীবনের ইতি ঘটে কিং ফিলিপের জীবনাবসানের মাধ্যমে।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতেই নিজ শাসনের প্লাটিনাম জুবিলি উদযাপন করেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাকিংহাম প্যালেসের বারান্দায় বরাবরের মতোই এসে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। তবে প্রথমবারের মতো তার সঙ্গে ছিলেন না স্বামী কিং ফিলিপ। আর এই প্লাটিনাম জুবিলিই ছিল রানির আমলের শেষ উদযাপন।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com