অল্প পুঁজিতেই বৃত্ত ভাঙল ঢাকা ডমিনেটরস

ক্রিকেটার সৌম্য সরকার।
ক্রিকেটার সৌম্য সরকার।ছবি : সংগৃহীত

দিনের ম্যাচে মাঠে দর্শক ছিল পনেরো হাজারের মতো। রাত হতেই দুই কি আড়াই হাজারে নেমে যায় দর্শকের সংখ্যা। টি-টোয়েন্টির যে আমেজ তার বিন্দুমাত্র দেখা মেলেনি ঢাকা ডমিনেটরস ও খুলনা টাইগার্সের ম্যাচে। উল্টো বিপিএলের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন পুঁজি নিয়েও জয় পেয়েছে ঢাকা। টানা ছয় হারের পর অবশেষে বৃত্ত ভেঙে জয়ে ফিরেছে তারা।

ঢাকার দেওয়া ১০৯ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ব্যাটিংয়ে ছন্দপতন হয় খুলনার। শুরু থেকে একের পর এক ব্যাটারের বিদায়ে হারের খুব ধারে পৌঁছে যায় তারা। ১৬তম ওভারে দুর্দান্ত দুই ডেলিভারিতে খুলনাকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দেন তাসকিন আহমেদ। এতে ২৪ রানের জয়ের দেখা পায় নাসির হোসেনরা।

খুলনার হয়ে সর্বোচ্চ ৩০ রান আসে তামিম ইকবালের ব্যাটে। এ ছাড়া ৮ ব্যাটারই ফিরেছেন দুই অংক ছোঁয়ার আগে। হেরে প্লেঅফের সমীকরণ কঠিন হলো তামিমদের।

প্রথম ইনিংসে ৮ রান তুলতেই তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে ঢাকা। তবে এক পাশে থিতু হয়েছিলেন সৌম্য সরকার। টুর্নামেন্টজুড়ে রান না পাওয়া সৌম্য এবার একাই একপাশ আগলে রাখলেন।

প্রথম সাত ব্যাটারের মধ্যে তিনিই খেলেন ৫৭ রানের ইনিংস। বাকিরা সবাই ফিরেছেন ১, ০, ০, ,৩, ৫, ৩ রান করে। সৌম্য ফিরলে রানের চাকা থেমে যায়। তাসকিন করেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১২ রান। খুলনার দুই স্পিনার নাহিদুল ইসলাম নেন চার উইকেট ও নাসুম আহমেদ নেন তিন উইকেট।

রান তাড়ায় ঢাকার হাইলাইটস ছিল খুলনার ব্যাটিং। সৌম্যের মতো তাদেরও ছিলেন শুধুই তামিম। তবে তাতে ম্যাচে তেমন কোনো লাভ হয়নি খুলনার। তামিম ফেরার পর একের পর এক উইকেট হারিয়ে হার মেনে নেয় তারা।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
logo
kalbela.com