জাপানের বিপক্ষে জার্মানির হারের ৫ কারণ

জার্মানিকে হারানোর পর জাপানিদের উল্লাস।
জার্মানিকে হারানোর পর জাপানিদের উল্লাস।ছবি : সংগৃহীত

কাতার বিশ্বকাপে চলছে এশীয় দলগুলোর দাপট। প্রথমে দুবারের চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে চমক দেয় সৌদি আরব। পর দিন জাপানের কাছে লজ্জাজনকভাবে হেরে যায় চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি।

হারের কারণ অনুসন্ধাণে চলছে চুলছেঁড়া বিশ্লেষণ। ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য মিরর জার্মারি হারের ৫ কারণ ব্যাখ্যা করেছে।

জাপানের বিপক্ষে হারের পর হতাশ জার্মান ফুটবলাররা।
জাপানের বিপক্ষে হারের পর হতাশ জার্মান ফুটবলাররা।ছবি : সংগৃহীত

১. মাঠের চেয়ে বাইরে বেশি মনোযোগী

কাতার বিশ্বকাপের প্রথম দিন থেকে বিরোধিতা করে আসছে জার্মানিসহ ইউরোপের ৭টি দেশ। সমকামী, মানবাধিকার লঙ্ঘনসহ আরও বেশি কিছু ইস্যুতে প্রতিবাদের জন্য ওয়ান লাভ আর্মব্রান্ড পড়তে চেয়ে ছিল তারা। কিন্তু ফিফার কাছ থেকে অনুমতি পায়নি তারা।

জাপানের বিপক্ষে নামার আগে মুখে হাত রেখে প্রতিবাদ করে জার্মানি।
জাপানের বিপক্ষে নামার আগে মুখে হাত রেখে প্রতিবাদ করে জার্মানি।ছবি : সংগৃহীত

জাপানের বিপক্ষে মুখে হাত দিয়ে প্রতীকী প্রতিবাদ জানায় জার্মানি। ম্যাচের আগে ঘোষণা আসে ফিফাকে আদালতে নেওয়ার। মাঠের চেয়ে মাঠের বাইরের কর্মকাণ্ডে বেশি মনোযোগী ছিল জার্মানরা। ফলে জাপানের বিপক্ষে এগিয়ে গিয়েও ২-১ গোলের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় জার্মানদের। মাঠের বাইরের কর্মকাণ্ডে বেশি মনোযোগ দেওয়ার কারণে হারের অন্যতম কারণ বলছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম।

দুর্দান্ত খেললেও গোল মিস করেছেন জামাল মুসিয়ালা।
দুর্দান্ত খেললেও গোল মিস করেছেন জামাল মুসিয়ালা।ছবি : সংগৃহীত

২. জামাল মুসিয়ালার গোল মিস

বায়ার্ন মিউনিখ জার্সিতে দুর্দান্ত সময় কাটিয়েছেন জামাল মুসিয়ালা। ১৯ বছর বয়সী এই ফুটবলারকে ধরা হচ্ছে জার্মানির আগামীর তারকা। কিন্তু বিশ্বকাপে জাপানের বিপক্ষে একক প্রচেষ্টায় গোলের সুবর্ণ সুযোগ তৈরি করেছিলেন তিনি নিজে। কিন্তু শটটি নেন পোস্টের বাইরে। জাপানের সমতাসূচক গোলের কিছুক্ষণ পর আবারও সহজ সুযোগ নষ্ট করেন জামাল।

জাপানের কোচ হাজিমে মরিয়াসু।
জাপানের কোচ হাজিমে মরিয়াসু।ছবি : সংগৃহীত

৩. জাপানি কোচের কৌশল

জার্মানদের বিপক্ষে শুরুতে ভুল চাল দিয়েছিলেন জাপানের কোচ হাজিমে মরিয়াসু। তিনি জাপানের সৃজনশীল ও কৌশলগত পরিপূর্ণ ফুটবলারদের কাছ থেকে ভালো ফুটবল আশা করছিলেন। যারা জার্মানদের সঙ্গে সেয়ানে সেয়ানে টক্কর দেবে।

দ্বিতীয়ার্ধে কৌশল পরিবর্তন করেন জাপানি কোচ। রক্ষণভাগ শক্ত করে, কাউন্টার অ্যাটাকে যায় জাপান। ব্রাইটনের কাউরু মিতোমা, সাবেক লিভারপুলের তারকা তাকি মিনামিনো এবং ফ্রেইবার্গের রিতসু ডোয়ান সেই দায়িত্ব বেশ ভালোভাবে পালন করেন। এতে সৃষ্টি হয় নতুন একটি ইতিহাস।

জার্মান রক্ষণে জাপানের টাকুমা আসানোর হানা।
জার্মান রক্ষণে জাপানের টাকুমা আসানোর হানা।ছবি : সংগৃহীত

৪. টাকুমা আসানোর দুর্দান্ত গতি

জার্মানির কাছে দুঃস্বপ্নের নাম জাপানের টাকুমা আসানো। তার দুর্দান্ত গতি এবং ফুটবল মাঠে তার মুভমেন্ট বিপদে ফেলে জার্মানদের। ডিফেন্ডার নিকলাস সুলে বারবার তাকে রুখতে ব্যর্থ হন। বিশেষ করে জাপানের দ্বিতীয় গোলটি এসেছে আসানোর কৃতিত্বে। দুরূহ এক কোণ থেকে জার্মান গোলকিপার নয়্যারকে পরাস্ত করে জয়ের নায়ক বনে যান ২৮ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

হারের পর বিমর্ষ জার্মান কোচ হ্যান্সি ফ্লিক।
হারের পর বিমর্ষ জার্মান কোচ হ্যান্সি ফ্লিক।ছবি : সংগৃহীত

৫. জার্মান কোচ হ্যান্সি ফ্লিকের অদূরর্শিতা

জাপানের বিপক্ষে এগিয়ে থাকায় কৌশলগত পরিবর্তন না আনা স্বাভাবিক। কিন্তু জাপানের কোচের কৌশল পরিবর্তনের পর, হ্যান্সি ফ্লিকেরও গেম প্ল্যান পরিবর্তন করা প্রয়োজন ছিল। কিন্তু জাপান ২-১ গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর ক্ষিপ্ত হয়ে হয়ে ওঠেন তিনি। বারবার ফুটবলার পরিবর্তন করেও কোনো কাজ হয়নি।

গ্রুপ-‘ই’-কে বলা হচ্ছে বিশ্বকাপের মরণফাঁদ। প্রথম ম্যাচে জাপানের কাছে হারের ফলে দেয়ালে পিঠ আটকে গেছে জার্মানদের। পরের ম্যাচ স্পেনের বিপক্ষে। যারা কোস্টারিকাকে ৭-০ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছে। সেই হারলে টানা দ্বিতীয়বারের মতো গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিতে হবে জার্মানিকে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com