আলোচিত-সমালোচিত জার্মানরা

ম্যাচের আগে মুখ ঢেকে প্রতিবাদ করেন জার্মান ফুটবলারর।
ম্যাচের আগে মুখ ঢেকে প্রতিবাদ করেন জার্মান ফুটবলারর।ছবি : সংগৃহীত

ফুটবল কখনো জীবনের প্রতিচ্ছবি। সৌদি আরব আর জাপানের সমর্থকদের কথাই ধরুন। নিশ্চিত হার জেনে গ্যালারিতে এসে, ফিরে গেছেন জয়ের বাঁধ ভাঙা আনন্দ নিয়ে। কাতার বিশ্বকাপ উৎসবে যোগ দিতে পারছে না কিছু মানুষ। তাদের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে ফিফার বাধার মুখে ইউরোপের সাত দেশ।

প্রতিবাদের কারণে নিজেদের প্রথম ম্যাচে হেরেও কিছু মানুষের কাছে আলোচিত জার্মানি, সমালোচনাও কম হচ্ছে না। জাপানের বিপক্ষে ম্যাচের আগে মুখ ঢেকে ফিফার বিরুদ্ধ প্রতিবাদ জানায় ন্যুয়্যার-মুলাররা। অনেকে বলছেন জার্মানদের এ প্রতিবাদ প্রজন্মের পর প্রজন্ম প্রতিধ্বনিত হবে।  

ম্যাচের আগে মুখ ঢেকে প্রতিবাদ করেন জার্মান ফুটবলাররা।
ম্যাচের আগে মুখ ঢেকে প্রতিবাদ করেন জার্মান ফুটবলাররা।ছবি : সংগৃহীত

উল্টো দিকে আছে সমালোচনাও। ২-১ গোলে হারের পর অনেকে বলছেন—মাঠের খেলা বাদ দিয়ে বাইরের ইস্যুতে মাথা ঘামানোয় জার্মানদের এই হাল। কাতারের এক সাংবাদিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টে সে কথাই লিখেছেন, ‘আপনি যখন ফুটবলে মনোনিবেশ করবেন না তখন এমনটাই ঘটবে।’

কাতারে সমকামিতা নিষিদ্ধ। আসর শুরুর আগে থেকে বেশ কয়েকটি সংস্থা কাতার সরকারের বিরুদ্ধে সমকামিতা ইস্যুতে প্রতিবাদ করছে। সেই প্রতিবাদে সামিল হয় ইউরোপীয় ফুটবলের জায়ান্টরা। বিশ্বকাপকে প্রতিবাদের মঞ্চ হিসেবে বেছে নিয়েছে ইংল্যান্ড, ওয়েলস, জার্মানসহ সাত দেশ।

ওয়ান লাভ ব্যান্ড পেরে মাঠে নামতে চেয়েছিলেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হ্যারি কেইন।
ওয়ান লাভ ব্যান্ড পেরে মাঠে নামতে চেয়েছিলেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হ্যারি কেইন।ছবি : সংগৃহীত

‘ওয়ান-লাভ আর্মব্যান্ড’ পড়ে তার প্রতিবাদ জানানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়েছিল। কিন্তু ফিফা সাফ জানিয়ে দেন—আর্ম ব্যান্ড পড়া যাবে না। প্রতিবাদে জাপান ম্যাচের আগে ফটোসেশনে হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রাখে জার্মান খেলোয়াড়রা। যার মাধ্যমে তারা বোঝাতে চাচ্ছে—প্রতিবাদের অধিকার, বাক স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে।

জার্মানদের প্রতিবাদের পন্থা অনেকে কাছে ভালো লেগেছে। তারা বলছে জার্মানদের এমন সাহসী পদক্ষেপ বছরের পর বছর, প্রজন্মের পর প্রজন্ম বহন করবে। মাঠের বাইরের কর্মকাণ্ডে কিছু সংখ্যক মানুষের সমর্থন পেলেও মাঠের খেলায় কিন্তু বেশ বিপাকে পড়েছে চারবারের চ্যাম্পিয়নরা।

জাপানের কাছে হেরে যাওয়া ২০১৮ সালের পর কাতারেও গ্রুপপর্ব থেকে বিদায়ের শঙ্কা উঁকি দিচ্ছে। জার্মানির হারের বিপরীতে গ্রুপে থাকা অন্যতম ফেভারিট স্পেন ৭-০ গোলে কোস্টারিকাকে উড়িয়ে দেয়। নিজেদের সম্ভাবনা ধরে রাখতে হলে পরের দুই ম্যাচ জিতলেই হবে না। তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য ম্যাচগুলোর দিকে। ২৮ নভেম্বর স্প্যানিশদের মুখোমুখি হবে জার্মানরা। হারলে বিদায় নিশ্চিত। এ অবস্থার কারণে ব্যাপক সমালোচনাও হচ্ছে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com