বিশ্বকাপের সবচেয়ে ‘আবেদনময়ী’ ফ্যান ইভানার ক্ষোভ প্রকাশ

কাতারে এসে মাঠে এবং মাঠের বাইরে এমন শালীন পোশাক পরতে বাধ্য হচ্ছেন ক্রোয়েশিয়ার ডাইহার্ড ফ্যান ইভানা নল।
কাতারে এসে মাঠে এবং মাঠের বাইরে এমন শালীন পোশাক পরতে বাধ্য হচ্ছেন ক্রোয়েশিয়ার ডাইহার্ড ফ্যান ইভানা নল।ছবি : সংগৃহীত

কাতারে অনুষ্ঠিত হওয়ায় এবারের বিশ্বকাপকে ঘিরে রক্ষণশীল বিধানের বেড়াজালে পড়েছেন দলগুলোর স্টাফ, খেলোয়াড়, দর্শক-সমর্থকরা। বিশ্বকাপ শুরুর আগেই যে কয়েকটি বিষয়ে সতর্ক করেছে কাতার কর্তৃপক্ষ, তার মধ্যে অন্যতম একটি হলো অশালীন পোশাক পরা যাবে না।

এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এবারের বিশ্বকাপের সবচেয়ে ‘আবেদনময়ী’ উপাধি পাওয়া ইভানা নল। ক্রোয়েশিয়ার এই ডাইহার্ড ফ্যান একজন প্রাক্তন মিস ক্রোয়েশিয়া। কাতার বিশ্বকাপ নিয়ে তার ক্ষোভের মূল কারণ, দেশটিতে যথেষ্ট খোলামেলা পোশাক পরতে পারছেন না তিনি। খবর ডেইলি মেইলের।

২০১৮ বিশ্বকাপে খোলামেলা পোশাক পরে দারুণ আলোচনায় ছিলেন ইভানা নল। কিন্তু এবার তা না পারায় হতাশা শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাই বলে কাতারে তিনি খুব শালীন পোশাক পরে ঘুরছেন, তেমনটাও বলা যাবে। গতকাল মরক্কোর বিপক্ষে নিজ দলকে সমর্থন করতে মাঠে ছিলেন ইভানা।

সেখানে তিনি ক্রোয়েশিয়ার পতাকা আঁকা পোশাক পরেছেন। সেই পোশাক তুলনামূলকভাবে শালীন মনে হলেও কাতার কর্তৃপক্ষ যে নির্দেশনা দিয়েছে, তা অনুসরণ করা হয়নি বলে মনে করা হচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দিয়ে কাতার বিশ্বকাপকে ‘ফুটবল বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে খারাপ আয়োজন’ বলে আখ্যা দিয়েছেন সাবেক এই মিস ক্রোয়েশিয়া। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘এমন সার্কাস দেখতে কোনো মানুষের কাতারে আসা উচিত নয়!’

কাতার বিশ্বকাপে মাঠ মাতাতে আসার কিছুদিন আগে বিকিনি পরা একটি ছবি শেয়ার দিয়ে ইভানা নল ক্যাপশনে লিখেছিলেন, কাতারে গিয়ে আমি কীভাবে পোশাক পরব? সেখানে এসে একজন কমেন্ট করেছেন, কাতারিরা তোমাকে তালা মেরে রাখবে!

চলতি বিশ্বকাপে বেশ কিছু ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছে কাতার কর্তৃপক্ষ। তার মধ্যে রয়েছে—স্টেডিয়ামের ভেতরে-বাইরে মদপান কিংবা পদ বহন করা যাবে না। সমকামিতার প্রতি কোনোরকম সমর্থন দেওয়া যাবে না। এমন পোশাক পরতে হবে, যাতে ফিগার বিশেষ করে বুক না দেখা যায়।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com