কপিরাইটের গানেও আয় করা যাবে ফেসবুকে

কপিরাইটের গানেও আয় করা যাবে ফেসবুকে
প্রতীকী ছবি

ডিজিটাল কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের জন্য অর্থ আয়ের পথ আরও সহজ করল বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক। এখন থেকে কপিরাইট বা মেধাস্বত্ব থাকা মিউজিক তথা সঙ্গীত ও গান ব্যবহার করে কনটেন্ট তৈরি করে, সেই কনটেন্ট থেকে আয় করা যাবে অর্থ। সোমবার (২৫ জুলাই) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় মেটার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান ফেসবুক।

সংক্ষেপে

প্রতিষ্ঠানটি জানায়, মিউজিকের মেধাস্বত্বধারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এবং কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের এই সুবিধা দিতে ‘রাইটস ম্যানেজার’ নামে নতুন একটি টুলস তৈরি করা হয়েছে। ক্রিয়েটর স্টুডিও অ্যাপের ‘ফাইল ম্যানেজমেন্ট’ ট্যাবের ‘লাইসেন্সড মিউজিক’ সেকশনে এই মিউজিকগুলো পাওয়া যাবে।

ফেসবুকের দাবি, কনটেন্ট ক্রিয়েটর, সঙ্গীতের মেধাস্বত্বধারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন অংশীদার এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদের জন্য এমন আয়োজন বিশ্বে এটিই প্রথম।

যেভাবে কাজ করবে এই ফিচার

কিছু নির্দিষ্ট ভিডিওর জন্য এই সুবিধা পাবেন কনটেন্ট ক্রিয়েটররা। এমন প্রতিটি ভিডিওতে প্রচারিত বিজ্ঞাপন বাবদ যে আয় হবে তার ২০ শতাংশ পাবে কনটেন্ট ক্রিয়েটর। বাকি ৮০ শতাংশ পাবে মিউজিকের মেধাস্বত্ব থাকা অংশীদার এবং মেটা। তবে এরজন্য কনটেন্ট ক্রিয়েটরকে ‘ইন স্ট্রিম অ্যাড’ ক্যাটেগরিতে বিজ্ঞাপন পাওয়ার যোগ্য হতে হবে। একই সঙ্গে ভিডিওগুলো ফেসবুকের মনিটাইজেশন পাওয়ার মানদণ্ডের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে। মানতে হবে কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড এবং সঙ্গীত নীতিমালা।

ফেসবুক আরও জানায়, এই সুবিধায় আয় করতে হলে ভিডিওগুলো অন্তত ৬০ সেকেন্ড বা ১ মিনিট পর্যন্ত দীর্ঘ হতে হবে। একই সঙ্গে, ভিডিওর আসল উদ্দেশ্যে শুধু ওই মিউজিক হতে পারবে না। এতে অন্যান্য ভিজুয়াল উপাদান থাকতে হবে।

এরইমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবহারকারীরা নতুন এই ফিচার উপভোগ করতে পারছেন। কয়েক মাসের মধ্যে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও এই ফিচার ব্যবহার করা যাবে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com