বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডসের নিবন্ধন শুরু

সংবাদ সম্মেলনে বেসিস নেতৃবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে বেসিস নেতৃবৃন্দ। ছবি : কালবেলা
সংক্ষেপে

* আবেদন করা যাবে ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ২ অক্টোবর পর্যন্ত

* আবেদনের লিংক bnia.basis.org.bd

* আবেদন করতে বেসিসের সদস্য হওয়া বাধ্যতামূলক না

* সেরা প্রকল্প অংশ নেবে পাকিস্তানে অনুষ্ঠিতব্য এপিকটা-২০২২-এর মূল আসরে

টানা পঞ্চমবারের মতো আয়োজিত হতে যাচ্ছে বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস-২০২২। দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উদ্ভাবনীমূলক পণ্য ও সেবা প্রকল্পগুলোকে স্বীকৃতি দিতে এর আয়োজন করে আসছে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজিস বা বেসিস। ৩৬টি ক্যাটাগরিতে ১০৮টি পুরস্কার অর্জনের পাশাপাশি সেরা প্রকল্পগুলোর সুযোগ রয়েছে আসন্ন এশিয়া প্যাসিফিক আইসিটি অ্যাওয়ার্ড (এপিকটা)-২০২২-এ বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করার।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ। ছবি : কালবেলা
এমন আন্তর্জাতিক আসর বিশ্ব প্রেক্ষাপটে আমাদের সক্ষমতা জানান দেওয়ার সুযোগ। এবারের আয়োজনে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে কার্যকরী প্রকল্পগুলোকে বিশেষভাবে বিবেচনা করা হবে।
বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে এক সংবাদ সম্মেলনে বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এ সময় বেসিসের ঊর্ধ্বতন প্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ এবং এবারের আসরের আহ্বায়ক এম রাশিদুল হাসান।

এ সময় রাসেল টি আহমেদ বলেন, এপিকটাকে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অস্কার হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। ২০১৬ সালে আমরা এপিকটার সদস্যপদ লাভ করি। সেই থেকে বাংলাদেশ থেকে নিয়মিত আমরা এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছি। সেখানে দেশ থেকে যাওয়া প্রকল্পগুলো এর আগে আমাদের জন্য সম্মান অর্জন করেছে। বেসিসের আগের কমিটিগুলোও এ বিষয়ে দারুণ কাজ করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও আমরা অংশ নিতে যাচ্ছি। এমন আন্তর্জাতিক আসর বিশ্ব প্রেক্ষাপটে আমাদের সক্ষমতা জানান দেওয়ার সুযোগ। এবারের আয়োজনে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে কার্যকরী প্রকল্পগুলোকে বিশেষভাবে বিবেচনা করা হবে।

অন্যদিকে জাতীয় পর্যায়ের আসরের আহ্বায়ক এম রাশিদুল হাসান বলেন, ৩৬টি ক্যাটাগরিতে তিনটি করে প্রকল্পকে পুরস্কৃত করা হবে; চ্যাম্পিয়ন, উইনার এবং মেরিট অ্যাওয়ার্ড। অর্থাৎ ১০৮টি পুরস্কার থাকছে। এগুলো থেকে সেরা প্রকল্পগুলোকে এপিকটার জন্য নির্বাচন করা হবে। প্রকল্প জমা দিতে আগ্রহীদের bnia.basis.org.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে আবেদন করতে হবে। যথাযথ বিচারিক ধাপ অনুসরণ করে আনুষ্ঠানিকভাবে ১০৮টি বিজয়ী প্রকল্পের নাম ঘোষণা করা হবে। এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে বেসিসের সদস্য হওয়া বাধ্যতামূলক না। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বাইরেও স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায় থেকেও আগ্রহীরা প্রকল্প জমা দিয়ে আবেদন করতে পারবেন। আজ ২০ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বেসিস অ্যাডভাইজরি স্ট্যান্ডিং কমিটির সহসভাপতি উত্তম কুমার পাল, শাহ ইমরাউল কায়ীশ, বেসিসের পরিচালক তানভীর হোসেন খান উপস্থিত ছিলেন। এবারের আসরে প্রধান বিচারক হিসেবে বেসিস প্রেসিডেন্টস অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্য আবদুল্লাহ এইচ কাফি এবং সহআহ্বায়ক হিসেবে বেসিস অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্য লিয়াকত হোসেন দায়িত্ব পালন করবেন।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com