গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় গণতান্ত্রিক বিশ্বের সহযোগিতা চায় বিএনপি

সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ছবি: কালবেলা

চলমান গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনে বিএনপি গণতান্ত্রিক বিশ্বের সহযোগিতা চায় বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। আজ বুধবার ঢাকা মহানগর বিএনপির মিরপুর জোনের উদ্যোগে আয়োজিত এক সমাবেশে এমনটা বলেন তিনি।

জ্বালানি তেল, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যের ঊর্ধ্বগতি এবং পুলিশের গুলিতে ভোলায় ছাত্রদল নেতা নুরে আলম, স্বেচ্ছাসেবক দলের আব্দুর রহিম ও নারায়নগঞ্জে যুবদল নেতা শাওন হত্যার প্রতিবাদে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
মুন্সীগঞ্জে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধসহ আহত ৫০

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আমিনুল হকের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভূঁইয়া, শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, তাবিথ আউয়াল, বজলুল বাছিত আঞ্জু, নাজিম উদ্দিন আলম, আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার, রফিকুল আলম মজনু, মামুন হাসান, শফিকুল ইসলাম মিল্টন, রাজীব আহসন, আবদুর রাজ্জাক প্রমুখ।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, আমাদের কর্মীরা এখনও ফাইনাল খেলায় নামেনি। রাষ্ট্রীয় প্রশাসনে যারা আছেন, জনগনের পক্ষে থাকেন। আমাদের সাথে মিছিল করার দরকার নেই। লুটেরা খুনি এই সরকারকে টিকিয়ে রাখার জন্য অতি উৎসাহ প্রকাশ করলে এর জবাব দিতে জনগণ বাধ্য হবে। এ পর্যন্ত গণতন্ত্রের জন্য যারা রক্ত দিয়েছেন, তাদের কারো রক্ত বৃথা যেতে পারে না। অতীতে কারো রক্ত বৃথা যায়নি। রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা কিনেছি, গণতন্ত্র এনেছি; রক্ত দিয়ে আমরা স্বাধীনতা রক্ষা করব এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করব।

সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
আন্দোলনের খসড়া রূপরেখা চূড়ান্ত করল বিএনপি

বিএনপির এই নেতা বলেন, গণতান্ত্রিক বিশ্বের কাছে আহ্বান থাকবে, জনগণের গণতান্ত্রিক এই লড়াইয়ে বাংলাদেশের জনগনের পাশে থাকুন। আমরা আপনাদের সহযোগিতা চাই। আমরা গণতান্ত্রিক বিশ্বের সদস্য হিসেবে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও ভোটাধিকার প্রশ্নে আপনাদের সহযোগিতা চাই। আমাদের কাল ক্ষমতায় এনে দিতে হবে না। জনগণ সিদ্ধান্ত নেবে তারা কাকে ক্ষমতায় বসাবে।

দেশে শতকরা ৫ ভাগ পুলিশ খারাপ উল্লেখ করে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, পুলিশ সদস্যদের বলব, আপনাদের ভুল বোঝানো হয়। বিএনপি ক্ষমতায় আসলে আপনাদের চাকরি থাকবে না। এটা অত্যন্ত ভুল ধারনা। আমরা জানি কোনটা ইচ্ছায় কোনটা অনিচ্ছায়। এই কাণ্ডজ্ঞান বিএনপির নেতাদের আছে। সবার তালিকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাওয়া যাবে। আমাদের শত্রু ভাববেন না, আপনারা জনগণের পক্ষে আসেন। জনগণ আপনাদের সম্মান করবে। মনে করবেন না, আপনাদের পোশাককে ভয় করে, তারা আপনাদের পোশাককে সম্মান করে।

দেশি-বিদেশি আর প্রতিবেশী এবং আপনাদের আশেপাশে কিছু সংস্থার লোকরা ঝুঁড়ি নিয়ে নেতাদের বাসায় যায়, আর দুই’শ আসন শেখ হাসিনার জন্য...। আসন কী কারো বাপের? যে দেশের লোকেরা এটা করেন, আমরা কি তাদের দেশে বাস করি? স্বাধীন বাংলাদেশে কূটনৈতিক শিষ্টাচার মেনে চলবেন। আমাদের অভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে হস্তক্ষেপ করবেন না।
গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য

তিনি বলেন, এই সরকার কোনো কিছুর দাম কমাবে না। আমাদের প্রথম দায়িত্ব এই সরকারকে নামানো। এরপর অবাধ সুষ্ঠু ভোটের মাধ্যমে জনগণ যাদের ক্ষমতায় বসাবে তারা নিত্যপ্রয়োজনীয় সব কিছু দাম কমাবে, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করবে। এই আওয়ামী লীগ সরকারের কাছে কোনো দাবি করে লাভ নেই। তাই, জনগণের দাবি এক, শেখ হাসিনার পদত্যাগ। আপনারা আমাদের বাড়িঘরে আক্রমন করেন, আপনাদের বাড়িঘরও কিন্তু আমরা চিনি। পাল্টা কাজটা যদি আমরা শুরু করি পালানোর জায়গা পাবেন? 

দেশের মালিকানা জনগণকে ফিরিয়ে দিতেই বিএনপি আন্দোলন করছে উল্লেখ করে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, এই আন্দোলন আমাদের ক্ষমতায় যাওয়ার আন্দোলন নয়। জনগণকে তার মালিকানা বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য আমরা আন্দোলন করছি। দশ লাখ কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে তার হিসাব চাই। জনগণকে শৃঙ্খল মুক্ত করতে চাই। অত্যাচারকারীদের বিচার চাই, শাস্তি চাই।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com