সমকামী কার্যক্রম নিষিদ্ধ ও জরিমানার বিধান রেখে রুশ সংসদে আইন পাস

২০১৭ সালে সেইন্ট পিটার্সবার্গে এলজিবিটি সমর্থকদের এটি র‌্যালি।
২০১৭ সালে সেইন্ট পিটার্সবার্গে এলজিবিটি সমর্থকদের এটি র‌্যালি।ছবি : রয়টার্স

সমকামীতাকে উৎসাহ দেয় এমন কোনো কার্যক্রম নিষিদ্ধ করে একটি আইন পাস করেছে রুশ পার্লামেন্ট। আজ বৃহস্পতিবার দেশটির সংসদে আইনটির তৃতীয় ও চূড়ান্ত খসড়া পাস করা হয়। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এমনটা জানা যায়।

এই আইনটি এখন সংসদের উচ্চকক্ষে পর্যালোচনার জন্য প্রেরণ করা হবে। তারপর প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের স্বাক্ষরের পর এটি প্রয়োগের জন্য চূড়ান্ত আইন হিসেবে কার্যকর হবে।

এ আইনের ফলে এলজিবিটি (লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সুয়াল ও ট্রান্সজেন্ডার) সংক্রান্ত বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ আরও বাড়ানো হলো। ফলে রাশিয়াতে যে কোনো বয়সের মানুষের কাছে এলজিবিটিসংক্রান্ত কোনো প্রচার ও প্ররোচনা একেবারেই নিষিদ্ধ করা হলো।

নতুন এ আইনের অধীনে এলজিবিটিসংক্রান্ত কোনো অনুষ্ঠান অথবা সমকামিতাকে প্ররোচনা দেয় এমন কোনো অনলাইন কার্যক্রম, চলচ্চিত্র, বই, বিজ্ঞাপন ও প্রচারের ফলে বড় অঙ্কের জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে।

ব্যক্তিক্ষেত্রে এ জরিমানার পরিমাণ হতে পারে সর্বোচ্চ ৪ লাখ রুবল (৬ হাজার ৬০০ ডলার)। কোনো প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার ক্ষেত্রে এ জরিমানার পরিমাণ হতে পারে ৫০ লাখ রুবল (৮২ হাজার ১০০ ডলার)। কোনো বিদেশি ব্যক্তি এ ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করতে ১৫ দিন মেয়াদি কারাদণ্ড ও রাশিয়া থেকে বহিষ্কার হতে পারেন।

সমালোচকরা এ আইনকে রাশিয়ার যৌন সংখ্যালঘুদের জন্য আতঙ্ক ও নিপীড়নের প্রতীক হিসেবে দেখছেন। ইতোমধ্যেই রুশ সরকার গে প্রাইড মার্চ বন্ধ করে দিয়েছে এবং গে অধিকারকর্মীদের কারারুদ্ধ করেছে।

রুশ আইনপ্রণেতারা বলছেন, পশ্চিমা বিশ্বের ক্ষয়িষ্ণু মূল্যবোধের বিপরীতে নিজেদের নৈতিকতাকে রক্ষা করার জন্য এ আইন পাস করা হয়েছে। তবে মানবাধিকারকর্মীরা বলছে এ আইন সংখ্যালঘুদের ওপর নিপীড়নের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

এর আগে, গত মাসে ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটককে ৩০ লাখ রুবল জরিমানা করা হয়েছিল এলজিবিটিসংক্রান্ত কন্টেন্ট প্রচারের জন্য। এ সময় রুশ নিয়ন্ত্রক সংস্থা সব প্রকাশনা সংস্থাকে এলজিবিটি প্ররোচিত করে এমন বই বাজার থেকে উঠিয়ে নিতে নির্দেশ দিয়েছে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com