রাজনৈতিক ব্যর্থতায় পূর্ব পাকিস্তানকে হারাতে হয়েছে : পাকিস্তান সেনাপ্রধান

পাকিস্তানের বিদায়ী সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া।
পাকিস্তানের বিদায়ী সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া।ছবি : সংগৃহীত

১৯৭১ সালে পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) আলাদা হয়ে যাওয়াটা সামরিক ব্যর্থতা নয় বরং রাজনৈতিক ব্যর্থতা ছিল বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের বিদায়ী সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। গতকাল বুধবার রাওয়ালপিন্ডিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সদরদপ্তরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেন তিনি। খবর দ্য ডনের।

জেনারেল বাজওয়া বলেন, ‘এমন একটি বিষয় নিয়ে আমি কথা বলছি, যা অনেকেই এড়িয়ে যান। বিষয়টি হলো ১৯৭১ সালে সাবেক পূর্ব পাকিস্তানে (বাংলাদেশ) সেনাদের (পশ্চিম পাকিস্তানের) আত্মসমর্পণ। আসলে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের আলাদা হয়ে যাওয়াটা আমাদের সামরিক ব্যর্থতা নয়, রাজনৈতিক ব্যর্থতা ছিল।’

তিনি বলেন, পশ্চিম পাকিস্তানের রাজনৈতিক ব্যর্থতার কারণেই ১৯৭১ সালে পূর্ব পাকিস্তান (বাংলাদেশ) আলাদা হয়ে গিয়েছিল। সে সময় পাকিস্তানের লড়াইরত সৈন্যসংখ্যা ৯২ হাজার নয়, মাত্র ৩৪ হাজার ছিল। বাকিরা বিভিন্ন দপ্তরে দায়িত্বরত ছিলেন। এত অল্প সংখ্যক সৈন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীর আড়াই লাখ ও মুক্তিবাহিনীর দুই লাখ সদস্যের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন।

সে সময় পাকিস্তানি সেনাদের আত্মত্যাগের কথা সাবেক ভারতীয় সেনাপ্রধান ফিল্ড মার্শাল মানেকশও স্বীকার করেছেন বলে দাবি করেন এই পাকিস্তানি সেনাপ্রধান। তিনি বলেন, ‘অথচ সেনাবাহিনীর ওই আত্মত্যাগকে পাকিস্তানের কোনো সরকারই এখন পর্যন্ত স্বীকৃতি দেয়নি, যা বিশাল অন্যায়।’

দীর্ঘদিন ধরে পাকিস্তানের রাজনীতিতে সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপের কথা অকপটে স্বীকার করেছেন জেনারেল বাজওয়া। তিনি বলেন, সামরিক বাহিনী কয়েক দশক ধরে দেশের রাজনীতিতে বেআইনি হস্তক্ষেপ করেছে, তবে সামনের দিনগুলোতে সেনাবাহিনী আর এ ধরনের কাজ করবে না।

জেনারেল বাজওয়া ২০১৬ সালে তিন বছরের জন্য পাকিস্তানের সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ পান। পরে তার মেয়াদ আরও তিন বছর বাড়ানো হয়। টানা ছয় বছর সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর এ মাসের শেষের দিকে অবসরে যাচ্ছেন তিনি।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com