যৌন মিলনরত যুগলের শরীরে সুপার গ্লু ঢেলে কুপিয়ে হত্যা

যৌন মিলনরত যুগলের শরীরে সুপার গ্লু ঢেলে কুপিয়ে হত্যা
প্রতীকী ছবি

ভারতের রাজস্থানের উদয়পুরের এক জঙ্গলে শারীরিকভাবে মিলনরত প্রেমিক যুগলের শরীরে সুপার গ্লু ঢেলে আটকে তাদের হত্যা করেছেন এক তান্ত্রিক। প্রেমিককে গলা কেটে এবং প্রেমিকা কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

ওই যুগলের একজন হলেন স্কুল শিক্ষক রাহুল মিনা (৩২) ও সোনু কুয়ার (৩১)। গত ১৮ নভেম্বর উদয়পুরের গোগুণ্ডা থানা এলাকার কেলা বাউদি জঙ্গল থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়। ঘটনার পর উদয়পুরে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। গতকাল বৃহস্পতিবার এই খবর দিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

পুলিশের বরাতে এনডিটিভি জানায়, এই ঘটনায় বালেশ যৌশি (৫২) নামের এক তান্ত্রিককে সোমবার গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পরে তারা হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত তুলে ধরে।

জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা ভূপেন্দ্র সিং ও কুন্দন কুওয়ারিয়া বলেছেন, নিহত দুই ব্যক্তিই বিবাহিত। তাদের মধ্যে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল।

পুলিশ জানায়, এই তান্ত্রিককে গ্রেপ্তারের আগে ঘটনাস্থলের আশপাশের প্রায় ৫০টি সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হয় এবং অন্তত ২০০ মানুষকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তদন্তের একপর্যায়ে ওই তান্ত্রিকের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়। পরে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি হত্যার কথা স্বীকার করেন।

পুলিশ আরও জানায়, বালেশ এলাকায় খুবই প্রভাবশালী এবং সমর্থকদের কাছে তিনি রাজনীতিক ও ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। তিনি ভাদভি গুদার একটি মন্দিরে থাকতেন। ওই মন্দিরে দেখা হওয়ার পর সোনু ও রাহুলের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সোনু প্রায়ই ওই তান্ত্রিকের সঙ্গে দেখা করতেন। রাহুলের বিয়ের পর তার বউ তান্ত্রিকের কাছে পরামর্শের জন্য আসেন। তখন তিনি সোনুর সঙ্গে রাহুলের সম্পর্কের কথা জানিয়ে দেন। এতে রাহুল-সোনু সম্পর্কে জটিলতা তৈরি হয়। পরে রাহুল-সোনু বিষয়টি জেনে তান্ত্রিকের নামে মানহানির মামলার হুমকি দিলে তিনি অপমানের ভয়ে তাদের হত্যার পরিকল্পনা করেন। এরপর তিনি ১৫ রুপি করে ৫০টি সুপার গ্লুর টিউব কেনেন এবং তা একটি বোতলে রাখেন।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তান্ত্রিক ওই যুগলকে ডাকেন এবং তার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক স্বাভাবিক আছে এমন একটা ভাব নেন। তারপর তাদের একটি বিচ্ছিন্ন বনে নিয়ে গিয়ে জীবনের জটিলতা থেকে মুক্তির জন্য তাদের সেখানে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করতে বলেন এবং সেখান থেকে দূরে যাওয়ার ভণিতা করেন তিনি। কিন্তু তারা যখন নিজেদের মধ্যে শারীরিকভাবে ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করে তখন তান্ত্রিক ফিরে এসে তাদের ওপর গ্লু ছড়িয়ে দেন। এরপর তিনি রাহুলের গলা কেটে এবং সোনুকে কুপিয়ে হত্যা করেন।

ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে রাস্তা থেকে ৩০০ মিটার ভেতরে তাদের আহতাবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। তখন তারা আঠা থেকে নিজেদের ছাড়ানোর চেষ্টা করছিলেন। রাহুলের যৌনাঙ্গ কাটা মনে হয়েছে এবং তাদের পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করা হয়েছে বলেও পুলিশ প্রমাণ পেয়েছে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com