সিরিয়ায় তুরস্কের বিমান হামলা মার্কিন সেনাদের ঝুঁকিতে ফেলছে: পেন্টাগন

সিরিয়ায় তুরস্কের বিমান হামলা মার্কিন সেনাদের ঝুঁকিতে ফেলছে: পেন্টাগন

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তুরস্কের বিমান হামলার অঞ্চলটিতে মার্কিন সামরিক সদস্যদের নিরাপত্তাকে ঝুঁকির মুখে ফেলছে। একই সঙ্গে এ অঞ্চলে আইএসআইএল জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কয়েক বছরের অগ্রগতিকে হুমকির মুখে ফেলছে। মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের পক্ষ থেকে এমন মন্তব্য করা হয়। খবর আলজাজিরার।

বুধবার এমন বক্তব্যের মাধ্যমে ন্যাটো সদস্য তুরস্কের বিমান অভিযান নেয় কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সম্প্রতি সিরিয়ার ‍উত্তরাঞ্চলে কুর্দি সমর্থিত ওয়াইপিজি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বিমান হামলা পরিচালনা করে আসছে তুরস্ক। ইস্তাম্বুলে ভয়াবহ বোমা হামলার জন্য ওয়াইপিজিকে দায়ি করা হয়।

পেন্টাগনের মুখপাত্র মার্কিন বিমান বাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনালের প্যাট রাইডার এক বিবৃতিতে বলেন, সিরিয়াতে বিমান হামলার ঘটনা সিরিয়াতে অবস্থানরত মার্কিন সেনাদের সরাসরি হুমকির মুখে ফেলছে। এসব মার্কিন সেনারা স্থানীয় সেনাদের সঙ্গে আইএসআইএস এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে এবং ১০ হাজারের বেশি বন্দি আইএসআইএস সদস্যের দায়িত্বে রয়েছে।

এসময় রাইডার আরও বলেন, এমন পরিস্থিতি অঞ্চলটিতে আইএসআইএস এর বিরুদ্ধে যুদ্ধকে আরও সংকটময় করে তুলছে। এসশয় তুরস্কের যুক্তিসঙ্গত নিরাপত্তার প্রশ্নেও একমত পোষন করেন পেন্টাগন মুখপাত্র।

রাইডার বলেন, আইএসআইএস এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ চলমান রাখার স্বার্থে এ ধরণের বিমান হামলার এখনই বন্ধ করা উচিত। পাশাপাশি সিরিয়ায় অবস্থানরত সেনাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাও জরুরি।

উত্তরাঞ্চলে ওইপিজি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সের সঙ্গে একজোট হয়ে আইএসআইএস এর বিরুদ্ধে লড়াই করছে প্রায় ৯০০ মার্কিন সেনা। এরআগে সিরিয়ায় তুরস্কের এমন অভিযানের সমালোচনা করে বিবৃতি দেয় রুশ কর্তৃপক্ষও।

বুধবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান বলেন, বিমান হামলার মাধ্যমে অভিযান শুরু করা হয়েছে। পরবর্তীতে প্রয়োজন অনুযায়ী স্থল অভিযানও শুরু করা হবে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com