ডলার নয়, রুশ ও চীনা মুদ্রায় লেনদেন করবে মিয়ানমার

ডলারের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে চীন ও রাশিয়ার নিজস্ব মুদ্রায় লেনদেন করতে চায় মিয়ানমার।
ডলারের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে চীন ও রাশিয়ার নিজস্ব মুদ্রায় লেনদেন করতে চায় মিয়ানমার।ছবি : রয়টার্স

ডলারের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে চীনা ও রাশিয়ার নিজস্ব মুদ্রায় লেনদেন এবং বিনিময় করতে সম্মত হয়েছে মিয়ানমার। চলতি মাসের শুরুর দিকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের পরই এ সিদ্ধান্ত নেয় মিয়ানমারের জান্তা সরকার।

আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ক্ষেত্রে চীনা মুদ্রা ইউয়ান, রাশিয়ান রুবল এবং ভারতীয় রুপিতে লেনদেন করতে চায় মিয়ানমার।

এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছেন জান্তা সরকারের মুখপাত্র মেজর জেনারেল জাও মিন তুন। তিনি বলেন, এখন থেকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ক্ষেত্রে চীনা, রাশিয়ান এবং ভারতীয় মুদ্রায় লেনদেন করবে তারা।

এক প্রতিবেদনে সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানায়, রাশিয়ার কাছ থেকে রুবলের মাধ্যমে সার ও জ্বালানি তেল আমদানিতে সম্মত হয়েছে নেপিদো।

চুক্তি অনুযায়ী কয়েক দিনের মধ্যে এসব পণ্যের লেনদেন এবং বিনিময় সম্পন্ন হবে। শুধু তাই নয়, বাণিজ্য সহজ করতে মিয়ানমারে রুশ ব্যাংকিং ব্যবস্থাও চালুর কথা জানিয়েছেন জান্তাপ্রধান।

রোহিঙ্গা সংকট এবং সেনা অভ্যুত্থানের কারণে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিভিন্ন দেশ মিয়ানমারের ওপর বেশকিছু নিষেধাজ্ঞারোপ করেছে। তবে এখনো মিয়ানমার জান্তার সঙ্গে ব্যবসা বাণিজ্য চালিয়ে আসছে চীন, ভারত, রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ।

তাই রুবল, ইউয়ান বা রুপিতে বাণিজ্য করতে চায় মিয়ানমার। এমনকি প্রতিবেশী ছোট দেশগুলোতেও ডলারের ওপর নির্ভরতা কমাতে প্রভাব খাটাতে চায় জান্তা সরকার।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর জেরে মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা দেশগুলো মস্কোর বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

অর্থনৈতিক ধস ঠেকাতে ও পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তুলে রাশিয়া তাৎক্ষণিক ঘোষণা দেয় তারা পশ্চিমাদের কাছে ডলারে নয়, রুবলে তেল, গ্যাস বিক্রি করবে। এতেই হু হু করে বাড়তে থাকে রুশ মুদ্রার দর। অনেকে বলছেন, বিকল্প মুদ্রা ব্যবস্থার দিকে ঝুঁকছে বিভিন্ন দেশ। ফলে দ্রুতই বিশ্ব বাজারে প্রভাব কমতে পারে ডলারের।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com