মহাদেশ : অ্যান্টার্কটিকার আদ্যোপান্ত, পর্ব-১

বিশ্বের সবচেয়ে দুর্গম ও বসবাসের অনুপযোগী মহাদেশ অ্যান্টার্কটিকা
বিশ্বের সবচেয়ে দুর্গম ও বসবাসের অনুপযোগী মহাদেশ অ্যান্টার্কটিকাসংগৃহীত ছবি

আমাদের গোলাকার পৃথিবীর একদম তলদেশে অবস্থিত মহাদেশটির নাম অ্যান্টার্কটিকা। এটি একাধারে বিশ্বের শীতলতম এবং শুষ্কতম মহাদেশ। বিশ্বে বরফ হিসেবে জমাটবদ্ধ সুপেয় পানির শতকরা প্রায় ৯০ ভাগই এই মহাদেশে অবস্থিত।

দুর্গম হওয়ায় তাই এই অ্যান্টার্কটিকা নিয়ে গুজবের কোনো কমতি নেই। পাঠক, পাঁচ পর্বের ধারাবাহিক এই লেখায় গুজবকে পাশ কাটিয়ে দুর্গম ও রহস্যময় অ্যান্টার্কটিকা সম্পর্কে জানাবো খাঁটি ও নিরেট তথ্য।

আজ প্রথম পর্ব

অ্যান্টার্কটিকা। পৃথিবীর সবচেয়ে শীতলতম, উচ্চতম ও শুষ্কতম মহাদেশ। পরিবেশ এতটাই দুর্গম যে আজও পর্যন্ত সেখানে কোনো মানুষের পক্ষে স্থায়ীভাবে বসবাস করা সম্ভব নয়।

অ্যান্টার্কটিকায় গড়ে ১৯৬ কিলোমিটার বেগে হাওয়া বয়ে যায়
অ্যান্টার্কটিকায় গড়ে ১৯৬ কিলোমিটার বেগে হাওয়া বয়ে যায়সংগৃহীত ছবি

সাউদার্ন সাগর দ্বারা পরিবেষ্টিত এন্টার্কটিকা মহাদেশের মোট আয়তন ১ কোটি ৪২ লাখ বর্গ কিলোমিটার বা ৫৫ লাখ বর্গ মাইল। আয়তন হিসেবে এন্টার্কটিকা অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের প্রায় দ্বিগুণ। আর যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় দেড়গুণ বড়।

দক্ষিণ সাগর বেষ্টিত মহাদেশ অ্যান্টার্কটিকা
দক্ষিণ সাগর বেষ্টিত মহাদেশ অ্যান্টার্কটিকাসংগৃহীত ছবি

আয়তনের হিসেবে পঞ্চম অবস্থানে থাকা এই মহাদেশের প্রায় পুরোটাই বরফের চাদরে ঢাকা। অ্যান্টার্কটিকার স্থলভাগের উপর এই বরফের উচ্চতা কোনো কোনো জায়গায় প্রায় তিন মাইল। তবে এখানকার বরফের গড় উচ্চতা প্রায় দুই কিলোমিটার বা সাড়ে ছয় হাজার ফুট।

শীতকালে অ্যান্টার্কটিকায় সর্বোচ্চ তিন কিলোমিটার পর্যন্ত বরফ আচ্ছাদিত হয়ে থাকে
শীতকালে অ্যান্টার্কটিকায় সর্বোচ্চ তিন কিলোমিটার পর্যন্ত বরফ আচ্ছাদিত হয়ে থাকেসংগৃহীত ছবি

অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশের বর্তমান চেহারা দেখে মনে হতে পারে- এটি হয়তো অনন্তকাল ধরে বরফ যুগে বসবাস করছে। কিন্তু ১৬ কোটি বছর আগেও এই মহাদেশের অবস্থান ছিলো বিষুব রেখার কাছাকাছি। তাহলে কীভাবে মহাদেশটি আজকের অবস্থানে এলো?

পাঠক, আগামী পর্বে আমরা সে বিষয়ে জানবো।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com