ইংল্যান্ড, গ্রেট ব্রিটেন ও যুক্তরাজ্যকে গুলিয়ে ফেলছেন?

অনেকেই ইংল্যান্ড, গ্রেট ব্রিটেন ও যুক্তরাজ্যকে একই মনে করেন
অনেকেই ইংল্যান্ড, গ্রেট ব্রিটেন ও যুক্তরাজ্যকে একই মনে করেনসংগৃহীত ছবি

যুক্তরাজ্য, ব্রিটেন অথবা ইল্যান্ড; এই তিনটি নাম নিয়ে কমবেশি আমরা সবাই গোলকধাঁধায় পড়েছি। অনেকেই এই ধাঁধা থেকে বের হতে পেরেছেন, অনেকেই হয়তো এখনো বিষয়টি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নিতে পারেননি।

এর বাইরে বিশালসংখ্যক মানুষ আছেন, যারা এই তিনটি নামকে একই দেশের ভিন্ন ভিন্ন নাম বলে মনে করেন। আদতে এটাও ভুল। তবে চলুন- ইংল্যান্ড, গ্রেট ব্রিটেন ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার পার্থক্য জেনে আসি-

মানচিত্রে যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্র
মানচিত্রে যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্রসংগৃহীত ছবি

জানতে হবে উত্তর আয়ারল্যান্ডকে

উপরের মানচিত্রে দুটি দ্বীপ দেখা যাচ্ছে। বাঁ পাশের ছোট দ্বীপটির পুরো অংশ নিয়ে আগে একটি দেশ ছিলো- নাম আয়ারল্যান্ড। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯২১ সালে দেশটি বিভক্ত হয়ে যায়।

আলাদা হওয়ার পর উপরের রঙিন ছোট্ট অংশটির নাম হয় উত্তর আয়ারল্যান্ড। আর বাকি কালো অংশের নাম হয় আয়াল্যান্ড প্রজাতন্ত্র। তবে শুধু আয়ারল্যান্ড নামে বর্তমানে কোন দেশের অস্থিত্ব নেই।

আর ওই ছবিটির ডান পাশের বড় কমলা অংশটিকে বলা হয় গ্রেট ব্রিটেন। যার অভ্যন্তরে রয়েছে মোট তিনটি দেশ। এর উত্তরের বৃহৎ অংশজুড়ে স্কটল্যান্ড, দক্ষিণের সিংহভাগ ইংল্যান্ড এবং পশ্চিম অংশে রয়েছে অপেক্ষাকৃত ছোট দেশ ওয়েলস। আর এই তিন দেশের সমন্বয়ে গঠিত গ্রেট ব্রিটেন। এর সঙ্গে উত্তর আয়ারল্যান্ড মিলে গঠিত হয়েছে যুক্তরাজ্য।

গ্রেট ব্রিটেন ও নর্দান আয়ারল্যান্ড নিয়ে যুক্তরাজ্য গঠিত হয়েছে
গ্রেট ব্রিটেন ও নর্দান আয়ারল্যান্ড নিয়ে যুক্তরাজ্য গঠিত হয়েছেসংগৃহীত ছবি

তবে দেশটির পুরো নাম- দ্য ইউনাইটেড কিংডম অব গ্রেট ব্রিটেন অ্যান্ড নর্দান আয়ারল্যান্ড। এই নামটি থেকেই বোঝা যায় যে ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও নর্দান আয়াল্যানড, এই চারটি দেশ নিয়ে যুক্তরাজ্য গঠিত। ছবিতে যুক্তরাজ্যের মানচিত্রটি দেখুন, তাহলে বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে।

তার মানে আমরা দেখতে পাচ্ছি- যুক্তরাজ্য হচ্ছে এমন একটি দেশ, যার ভেতরে আরও চারটি দেশ রয়েছে। মজার বিষয় হলো- এদের সবার আলাদা আলাদা পতাকা ও রাজধানী থাকলেও তারা কেউ সার্বভৌম দেশ নয়। সার্বভৌমত্বের প্রশ্নে যুক্তরাজ্য তাদের অভিভাবক।

যুক্তরাজ্যের পতাকা
যুক্তরাজ্যের পতাকাসংগৃহীত ছবি

যুক্তরাজ্যের এই জটিল গঠন একদিনে নয়, হয়েছে সুদীর্ঘ ৫০০ বছরে। ১৫৩৬ সালে ইংল্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত হয় ওয়েলস। স্কটল্যান্ড যুক্ত হয় আরও প্রায় ২০০ বছর পরে অর্থাৎ ১৭০৭ সালে। এই তিন দেশ মিলে গঠিত হয়েছিলো ‘দ্য কিংডম অব গ্রেট ব্রিটেন’।

এরপর ১৮০১ সালে তৎকালীন সমগ্র আয়াল্যান্ড গ্রেট ব্রিটেনের সঙ্গে একত্রিত হয়। আর ওই সময়ে-ই নাম বদলে হয়েছিলো ‘দ্য ইউনাইটেড কিংডম অব গ্রেট ব্রিটেন অ্যান্ড নর্দান আয়ারল্যান্ড’। এই নামটি এখনো বিদ্যমান থাকলেও বর্তমানে এই দেশগুলোকে একত্রে শুধু ইউকে বা যুক্তরাজ্য বলেই ডাকা হয়।

মানচিত্রে ইংল্যান্ডের অবস্থান
মানচিত্রে ইংল্যান্ডের অবস্থানসংগৃহীত ছবি

তাহলে গ্রেট ব্রিটেন এবং যুক্তরাজ্যের বিষয়টি পরিষ্কার হওয়ার পরে এবার আমরা ইংল্যান্ডের দিকে নজর দিতে পারি। সহজ ভাষায় স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের মতো ইংল্যান্ডও একটি দেশ। যার রাজধানী লন্ডন। একই সঙ্গে এটি যুক্তরাজ্যেরও রাজধানী। আর এই ইংল্যান্ডের ওপর ভর করেই ব্রিটিশরা অন্য তিনটি দেশ নিয়ে যুক্তরাজ্য গড়েছে।

সংগৃহীত ছবি
সংক্ষেপে

ইংল্যান্ড, ওয়েলস ও স্কটল্যান্ড মিলে গ্রেট ব্রিটেন। এর সঙ্গে উত্তর আয়ারল্যান্ড মিলে যুক্তরাজ্য। ইংল্যান্ড যুক্তরাজ্যের অন্য তিনটি দেশের মতোই শুধুমাত্র একটি দেশ। এর রাজধানী লন্ডন।

খেলাধুলার ক্ষেত্রেও যুক্তরাজ্যের চার দেশের মধ্যে জটিল হিসাব-নিকাষ দেখা যায়
খেলাধুলার ক্ষেত্রেও যুক্তরাজ্যের চার দেশের মধ্যে জটিল হিসাব-নিকাষ দেখা যায়সংগৃহীত ছবি

খেলাধুলার ক্ষেত্রেও রয়েছে জটিলতা

ফুটবল বিশ্বকাপে দেশেই আলাদা আলাদা আন্তর্জাতিক দল হিসেবে অংশগ্রহণ করে। শুধু তাই নয়, সবার রয়েছে আলাদা বোর্ড ও লীগও। ক্রিটেকে এসে এই হিসাব কিছু পাল্টে যায়। কারণ সেখানে স্কটল্যান্ড ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের পৃথক দল থাকলেও ইংল্যান্ড ও ওয়েলস মিলে একটি আন্তর্জাতিক দল খেলে থাকে। তবে অলিম্পিকে এসে আবার সবগুলো দেশ মিলে গ্রেট ব্রিটেন নামে অধীনে একটি মাত্র দেশ হিসেবে অংশগ্রহণ করে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com