প্লাস্টিকের বোতলে কেন পানি খাবেন না

প্লাস্টিকের বোতলে কেন পানি খাবেন না

পানিসহ বিভিন্ন কোমল পানীয় সাধারণত প্লাস্টিকের বোতলে রাখা হয়। অনেকেই জানেন না প্লাস্টিকের বোতলে পানি খাওয়া শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

কী কারণে প্লাস্টিকের তৈরি বোতল স্বাস্থ্যের জন্য ভালো না তা জেনে নিন।

১. ব্যাকটেরিয়া

মিনারেল পানিতে বিভিন্ন ধরনের জীব থাকতে পারে। যেমন কলিফর্ম। যেগুলো অনেক সময় বেঁচে থাকতে পারে। বিশেষ করে যখন পানি প্লাস্টিকের বোতলে পানি রাখা হয় তখন ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি থাকে।

২. ‘ভাল মানের’ ভুল ধারণা

বোতলজাত পানির সুবিধা, স্বাদ এবং পরিচ্ছন্নতা অনেকের কাছে এটিকে আকর্ষণীয় করে তোলে। ভোক্তারা বিশ্বাস করেন, বোতলের পানির মান ভালো। বাস্তবতা একেবারেই ভিন্ন। সমীক্ষা বলছে, বোতলের পানিতে ব্যাকটেরিয়ার মাত্রা কলের পানির চেয়ে বেশি।

সংক্ষেপে

ব্যবহারের পর প্লাস্টিকের বোতল ফেলে দিলে আবর্জনার সঙ্গে মাটির নিচে যায়। এটি সহজে পচে না, ফলে মাটির উর্বরতা নষ্ট করে। এ ছাড়া পোড়ানো হলে সেটিও পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ। প্লাস্টিকের বোতল পচতে সময় লাগে ৪৫ থেকে ১ হাজার বছর।

৩. প্লাস্টিক দূষণ

বোতলজাতের জন্য ব্যবহৃত প্লাস্টিক পেট্রোলিয়াম পণ্য এবং অন্যান্য রাসায়নিক ব্যবহার করে তৈরি করা হয়। যে কারণে প্লাস্টিকের পানির বোতলটি ক্ষয়ের সময় প্লাস্টিকের উপাদান পানিতে মিশে যায়। যা শরীরে ভয়াবগ রোগ সৃষ্টি করতে পারে।

৪. প্রজননে সমস্যা

‘টাইপ ৭’ নামক এক ধরনের প্লাস্টিক থেকে দেখা দিতে পারে প্রজননের সমস্যাও। সেই সঙ্গে বিপিএ হরমোন ও ক্রোমোজোমের সমস্যাও ডেকে আনতে পারে।

৫. গর্ভাবস্থায় জটিলতা

প্লাস্টিকের বোতলে বিপিএ নামক রাসায়নিক পদার্থ থাকে, যা স্বাস্থ্যের ওপর ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলে। বিশেষত অন্তঃসত্ত্বা নারী ও গর্ভজাত শিশু মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এই পদার্থ।

৬. প্রাকৃতিক দূষণ

প্লাস্টিক বোতলের আরেকটি ক্ষতিকর দিক হলো ব্যবহার পর ফেলে দিলে সহজে পচে না। ব্যবহারের পর এটি ফেলে দিলে আবর্জনার সঙ্গে মাটির নিচে যায়। যেহুতু সহজে পচে না, ফলে মাটির উর্বরতা নষ্ট করে। এ ছাড়া পোড়ানো হলে সেটিও পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ। প্লাস্টিকের বোতল পচতে সময় লাগে ৪৫ থেকে ১ হাজার বছর।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com