খসে পড়ছে ইবির সাদ্দাম হোসেন হলের পলেস্তারা

ইবির সাদ্দাম হোসেন হলের রান্নাঘরের ছাদ থেকে খসে পড়া পলেস্তারা।
ইবির সাদ্দাম হোসেন হলের রান্নাঘরের ছাদ থেকে খসে পড়া পলেস্তারা।ছবি : কালবেলা

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) প্রথম আবাসিক হল সাদ্দাম হোসেন হলের রান্নাঘরের পলেস্তারা খসে পড়েছে। ওই সময় রান্নাঘরে কাজ করছিলেন রাসেল নামের এক কর্মচারী। অল্পের জন্য তিনি দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় এই ঘটনা ঘটেছে।

প্রায়ই এমন ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন ডাইনিং ম্যানেজার আবেদ হোসেন। তিনি আরও জানান, হল প্রশাসনকে এ বিষয়ে বারবার অবহিত করলেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। ফলে ঝুঁকি নিয়েই কাজ করতে হচ্ছে সব কর্মচারীদের।

সরেজমিনে দেখা যায়, সাদ্দাম হোসেন হল ডাইনিংয়ের রান্নাঘরে চুলার পাশে বিশালাকার পলেস্তারা পড়ে আছে। এ ছাড়া ছাদের বিভিন্ন জায়গায় পলেস্তারায় ফাটল ধরেছে। যে কোনো মুহূর্তে খসে পড়ে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। তারপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন কর্মচারীরা।

ডাইনিংয়ের কর্মচারী রাসেল বলেন, ‘আমি কিচেনে ঢুকছিলাম। হঠাৎ চোখের সামনে পলেস্তারা খসে পড়ল। একটু হলেই আমার মাথায় পড়ত। শব্দ শুনে আব্বু (ডাইনিং ম্যানেজার আবেদ হোসেন) ছুটে আসেন।’

ডাইনিং ম্যানেজার আবেদ হোসেন বলেন, ‘এমন ঘটনা প্রায়ই ঘটে। হল প্রশাসনকে বিষয়টি জানানো হলে, তারা এসে শুধু লিখে নিয়ে যান। কিন্তু কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না। আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি। কিছুদিন আগে পলেস্তরা খসে আমার পায়ের ওপর পড়েছিল। পায়ে মারাত্মক আঘাত পাই।

‘আমাদের কারো কোনো কিছু হয়ে গেলে এর দায়ভার কে নেবে? আমরা এর সুষ্ঠু প্রতিকার চাই।’

এ বিষয়ে হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আমরা বিষয়টি শুনেছি। অনেক পুরাতন হল হওয়ায় সংস্কার করলে কিছুদিন পর আবার নষ্ট হয়ে যায়।’

প্রধান প্রকৌশলীর সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়েছে বলে ড. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘প্রকৌশল অফিস থেকে সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে প্রধান প্রকৌশলী জানিয়েছেন ছাদটি পুরোপুরি ড্যাম হওয়ায় রান্নাঘর ভেঙে নতুন করে নির্মাণ করতে হবে। শনিবার আমরা বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com