ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ

ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ
ছবি : সংগৃহীত

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বেসরকারি খাতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ইউনাইটেড গ্রুপের জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ইউপিজিডিসিএল)। পাশাপাশি কোম্পানিটি ক্যাপাসিটি চার্জ আদায়েও বেসরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে।

কোম্পানি সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে ইউনাইটেড গ্রুপের ছয়টি নিজস্ব বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে। এ ছাড়া কেপিসিএলের ৩৫ শতাংশ, পায়রায় একটি কেন্দ্রের ৮২ দশমিক ৫০ শতাংশ ও আশুগঞ্জের একটি কেন্দ্রের ৭১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে ইউনাইটেডের কাছে। সব মিলিয়ে ইউনাইটেড গ্রুপের বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা এক হাজার পাঁচ মেগাওয়াট।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) সূত্রে জানা গেছে, ১২ বছরে গ্রুপটি নিজস্ব কেন্দ্রগুলোর জন্য ৬ হাজার ৬০৪ কোটি ৭৪ লাখ টাকা ক্যাপাসিটি চার্জ আদায় করেছে।

এ ছাড়া কেপিসিএলের ৩৫ শতাংশ ক্যাপাসিটি চার্জ বাবদ ১২ বছরে প্রায় এক হাজার ২৭৫ কোটি ১৪ লাখ টাকা ক্যাপাসিটি চার্জ গেছে গ্রুপটির কাছে। সব মিলিয়ে প্রায় সাত হাজার ৮৮০ কোটি টাকা ক্যাপাসিটি চার্জ নিয়েছে ইউনাইটেড গ্রুপ।

ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ
প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের পছন্দের তালিকায় ১৩ বীমার শেয়ার

প্রাপ্ত তথ্য মতে, ২০১০-১১ অর্থবছরে ইউনাইটেড আশুগঞ্জ পাওয়ার ছিল গ্রুপটির একমাত্র বিদ্যুৎকেন্দ্র। ৫৩ মেগাওয়াট এই কেন্দ্রটির জন্য ওই বছর আট কোটি ৯০ লাখ টাকা ক্যাপাসিটি চার্জ পরিশোধ করতে হয়েছে পিডিবিকে। পরের (২০১১-১২) অর্থবছরও কোম্পানিটির ওই একটি কেন্দ্রই উৎপাদনে ছিল, যার জন্য ক্যাপাসিটি চার্জ পরিশোধ করা হয় ১৫৫ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

২০১২-১৩ অর্থবছর উৎপাদনে শুরু করে ইউনাইটেডের আরেকটি কেন্দ্র। ৩০ মেগাওয়াটের এই কেন্দ্রটি গ্যাসচালিত। এতে ইউনাইটেডের বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা বেড়ে দাঁড়ায় ৮৩ মেগাওয়াটে। দুই কেন্দ্রের জন্য সে অর্থবছর ক্যাপাসিটি চার্জ পরিশোধ করতে হয় ১৯৪ কোটি ৯১ লাখ টাকা।

ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ
লভ্যাংশ ঘোষণার তারিখ জানিয়েছে ৪ কোম্পানি

২০১৩-১৪ অর্থবছরেও কোম্পানাটির উৎপাদন করার ক্ষমতা একই ছিল। তবে এই বছরে কোম্পানিটির উৎপাদন কিছুটা কম হয়। এতে পিডিবিকে ক্যাপাসিটি চার্জ কম গুনতে হয়েছে। এই বছর কোম্পানিটিকে ক্যাপাসিটি চার্জ দিয়েছে ১৭৮ কোটি আট লাখ টাকা।

পরের বছর ২০১৪-১৫ অর্থবছরে কোম্পানিটির আশুগঞ্জ গ্যাসচালিত কেন্দ্রটির উৎপাদন সক্ষমতা ১৯৫ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়। এতে ইউনাইটেডের উৎপাদন সক্ষমতা বেড়ে দাঁড়ায় ২৪৮ মেগাওয়াটে। এর বিপরীতে পিডিবিকে ক্যাপাসিটি চার্জ গুনতে হয়েছে ১১৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।

২০১৫-১৬ অর্থবছর ৪৫ মেগাওয়াটের আরেকটি কেন্দ্র উৎপাদনে আসে ইউনাইটেডের। এতে গ্রুপটির বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা বেড়ে দাঁড়ায় ২৯৩ মেগাওয়াটে। এজন্য পিডিবিকে ক্যাপাসিটি চার্জ দিতে হয়েছে ৩৬৭ কোটি ১১ লাখ টাকা।

২০১৬-১৭ অর্থবছরও ইউনাইটেডের বিদ্যুৎ খাতে উৎপাদন সক্ষমতা একই ছিল। তবে উৎপাদন বৃদ্ধি পাওয়ায় সে অর্থবছর ক্যাপাসিটি চার্জ পরিশোধ করতে হয় ৪৩৬ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ
৭ শেয়ারে বিনিয়োগে ডিএসইর সতর্কবার্তা

তবে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের শেষ দিকে ২০০ মেগাওয়াটের ফার্নেস অয়েলচালিত আরেকটি কেন্দ্র উৎপাদন শুরু করে। এতে চার কেন্দ্রের উৎপাদন সক্ষমতা দাঁড়ায় ৪৯৩ মেগাওয়াট। আর সে অর্থবছর ক্যাপাসিটি চার্জ দেয়া হয় ৪৪২ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে জামালপুরে ফার্নেস অয়েলচালিত ১১৫ মেগাওয়াটের আরেকটি বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদন শুরু করে ইউনাইটেড। এতে গ্রুপটির উৎপাদন সক্ষমতা বেড়ে দাঁড়ায় ৬০৮ মেগাওয়াট। সে অর্থবছর পিডিবিকে ক্যাপাসিটি চার্জ গুনতে হয় ৭৬৫ কোটি ২৬ লাখ টাকা।

২০১৯-২০ অর্থবছর চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ৩০০ মেগাওয়াটের ফার্নেস অয়েলচালিত আরেকটি কেন্দ্রে উৎপাদন শুরু করেছে গ্রুপটি। এতে ইউনাইটেডের উৎপাদন সক্ষমতা বেড়ে দাঁড়ায় ৮৫৫ মেগওয়াট। আর এ কেন্দ্রগুলোর জন্য পিডিবিকে ক্যাপাসিটি চার্জ গুনতে হয়েছে এক হাজার ২৩৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

২০২০-২১ অর্থবছরের জানুয়ারি মাসে উৎপাদন শুরু করে ১৫০ মেগাওয়াটের ইউনাইটেড পায়রা কেন্দ্রটি। এতে গ্রুপটির উৎপাদন সক্ষমতা বেড়ে দাঁড়ায় এক হাজার পাঁচ মেগাওয়াট। এগুলোর ক্যাপাসিটি চার্জ ছিল এক হাজার ৩৩৫ কোটি ৪৫ টাকা। আর গত অর্থবছর এই কেন্দ্রগুলোর জন্য ক্যাপাসিটি চার্জ গুনতে হয় এক হাজার ৩৬৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা। যদিও ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন ৪৫ মেগাওয়াট কেন্দ্রটির জন্য কোনো ক্যাপাসিটি চার্জ গুনতে হয় না পিডিবিকে।

এই কেন্দ্রের উৎপাদিত বিদ্যুৎ সরাসরি চট্টগ্রামে অবস্থিত রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে (ইপিজেড) সরবরাহ করে ইউনাইটেড। এই কেন্দ্রের শুধু রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় বহন করে পিডিবি।

ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ
২৫০০ কোটি টাকা ফিরে পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা

ইউনাইটেডের নিজস্ব কেন্দ্রের বাইরেও কেপিসিএলের ৩৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে ইউনাইটেড গ্রুপ ও এর কয়েকজন পরিচালকের হাতে। ২০১০ সালের এপ্রিলে কেপিসিএল শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ওই কোম্পানির অধীনে একসময় তিনটি বিদ্যুৎকেন্দ্র ছিল। এসব কেন্দ্রের জন্য ১২ বছরে ইউনাইটেড ক্যাপাসিটি চার্জ পায় প্রায় এক হাজার ২৭৫ কোটি ১৪ লাখ টাকা। যদিও সব কেন্দ্রের মেয়াদ গত দুই বছরে শেষ হয়ে যায়। তবে পরে দুটি কেন্দ্রের চুক্তি দুই বছরের জন্য নবায়ন করে সরকার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ক্যাপাসিটি চার্জ বিদ্যুৎ খাতের জন্য বোঝা হয়ে উঠেছে। নানা কারণে কেন্দ্রগুলোর উৎপাদন বন্ধ থাকলেও এই অর্থ গুনতে হচ্ছে পিডিবিকে। এমনকি বর্তমানে চাহিদা না থাকায় বা জ্বালানি সংকটের কারণে বেশকিছু বেসরকারি কেন্দ্র বসে থাকছে। এরপরও ক্যাপাসিটি চার্জ নিয়মিতই পরিশোধ করতে হচ্ছে। তাই এই ধরনের লাইসেন্স প্রদানের আগে সংশ্লিষ্ট সব বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

ইউনাইটেড পাওয়ার : ১২ বছরে আদায় ৭ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার ক্যাপাসিটি চার্জ
কারসাজিদের ‘সুবিধা দিতে’ ফের প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com