মিউচুয়াল ফান্ডের ভবিষ্যৎ নিয়ে যা বললেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘রিং দ্য বেল’ অনুষ্ঠান।
রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘রিং দ্য বেল’ অনুষ্ঠান।ছবি : সংগৃহীত

ভবিষ্যতে মিউচুয়াল ফান্ড এফডিআরের বিকল্প হবে বলে জানিয়েছেন শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। তিনি বলেন, ‘এটি মার্কেটকে স্থিতিশীল করতে ও টেকসই অগ্রগতিতে অনেক সহায়তা করে। এ কারণে মিউচুয়াল ফান্ডের দিকে আমাদের নজর অনেক বেশি। এখানে বিনিয়োগের সময় এখন।’

রাজধানীর একটি হোটেলে গতকাল মঙ্গলবার রাতে আইসিবি এএমসিএল সিএমএসএফ গোল্ডেন জুবিলি মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন শুরু উপলক্ষে আয়োজিত ‘রিং দ্য বেল’ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত বলেন, ‘আমরা ঘণ্টা বাজিয়ে বুঝিয়ে দিলাম, মিউচুয়াল ফান্ডে এখনই বিনিয়োগের সময়। সামনে শরিয়াহভিত্তিক কিছু মিউচুয়াল ফান্ড আসবে। যেখানে আমাদের ধর্মপ্রাণ মুসলমান ভাইবোনেরা বিনিয়োগ করতে পারবেন। মিউচুয়াল ফান্ডগুলো এখন ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে। এখন শুধু দরকার মানুষের আস্থা। আমরা সে লক্ষ্যে কাজ করছি।’

মিউচুয়াল ফান্ডের বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। এই সম্ভাবনা কাজে লাগাতে কাজ করছে কমিশন। এরই মধ্যে ইসলামিক মিউচুয়াল ফান্ড হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন ধরনের পণ্য আসছে। সরকার এ ব্যাপারে সহায়তা করছে। আশা করছি, আগামীতে শিল্পায়নের পুঁজি সংগ্রহ ও বিনিয়োগকারীদের জন্য বড় মাধ্যম হবে শেয়ারবাজার।
অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম, বিএসইসি চেয়ারম্যান

অনুষ্ঠানে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড (সিএমএসএফ) থেকে বিনিয়োগকারীদের ৭০ লাখ ৫১ হাজার ৭০২ টাকা সমমূল্যের অমীমাংসিত দাবি নিষ্পত্তি করা হয়। একই সঙ্গে শহীদজননী জাহানারা ইমামের ছোট ছেলে সাইফ ইমামের নগদ লভ্যাংশের দাবিও নিষ্পত্তি করা হয়। ২৭ বছর পর সাইফ ইমাম তার প্রয়াত মা শহীদজননী জাহানারা ইমাম এবং তার বড় ভাই শহীদ শাফী ইমাম রুমির শেয়ারের সঙ্গে তার শেয়ারের জন্য অনিষ্পন্ন অর্থ ফিরে পান। ১৯৯৩ সালে ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড নামে একটি কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছিলেন জাহানারা ইমাম। ২০১৯ সাল পর্যন্ত তার লভ্যাংশের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৪২ হাজার ৪১০ টাকা।

সিএমএসএফের চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ, ড. মিজানুর রহমান ও ডিএসইর চেয়ারম্যান মো. ইউনুসুর রহমান।

সিএমএসএফ ও আইসিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের জন্য এ মিউচুয়াল ফান্ড চালু করেছে।

আইসিবি এএমসিএল সিএমএসএফ গোল্ডেন জুবিলি মিউচুয়াল ফান্ডের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ১০০ কোটি টাকা। ফান্ডটির উদ্যোক্তা হিসেবে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড (সিএমএসএল) ৫০ কোটি টাকা এবং আইসিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড (আইসিবি এএমসিএল) ২০ কোটি টাকা দিয়েছে।

ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) প্রি-আইপিও প্লেসমেন্টের পাঁচ কোটি টাকা দেয়। বাকি ২৫ কোটি টাকা সব বিনিয়োগকারীর জন্য বরাদ্দ রাখা হয়। যা প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে উত্তোলন করা হয়েছে। ফান্ডটির ইউনিটপ্রতি অভিহিত মূল্য ১০ টাকা।

শেয়ারবাজার স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে এই গোল্ডেন জুবিলি মিউচুয়াল ফান্ড নিয়ে আসা হচ্ছে। গত ৩১ মার্চ সিএমএসএফ ফান্ডের ট্রাস্ট ডিড এবং বিনিয়োগ ব্যবস্থাপনা চুক্তির বিষয়ে বিএসইসি অনুমোদন দেয়।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১১ এপ্রিল একটি ট্রাস্ট ডিড সই হয়। ‘আইসিবি এএমসিএল সিএমএসএফ গোল্ডেন জুবিলি মিউচুয়াল ফান্ড’-এর স্পন্সর হলো ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড এবং সম্পদ ব্যবস্থাপক হিসেবে আছে আইসিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড। এ ছাড়া ফান্ডটির কাস্টোডিয়ান হিসেবে রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড এবং ট্রাস্টি হিসেবে আছে বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com