কারসাজিদের ‘সুবিধা দিতে’ ফের প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি

প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি।
প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি।ছবি : সংগৃহীত

লেনদেনের শুরুতে ওপরের দামে কিংবা নিচের দামে অস্বাভাবিক বাই বা সেল প্রেশার বসিয়ে কারসাজির সন্দেহে শেয়ারবাজারে যে প্রি-ওপেনিং সেশন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল, সেটি আবার ফিরিয়ে আনতে যাচ্ছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরানোর যুক্তি হিসেবে বিএসইসি বলছে, স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রেডিং ইঞ্জিনের চাপ কমানোর জন্যই এটি ফের চালু করা হচ্ছে।

বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘লেনদেনের ভলিয়ম বাড়ায় এখন সকাল বেলায় অর্ডার বেশি হয়ে যায়। সফটওয়্যারের লোড কমাতে আমরা আবারও প্রি-ওপেনিং সেশন চালু করছি।’

এর আগে কারসাজির ঘটনায় প্রি-ওপেনিং সেশন বন্ধ করে দেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এখন কি কারসাজি হবে না—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘যাতে কারসাজি না করতে পারে, সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আগে মার্কেটের প্রয়োজনে প্রি-ওপেনিং সেশন বন্ধ করেছিলাম। এখন মার্কেটের প্রয়োজনেই আবার চালু করছি। পৃথিবীর সব দেশেই প্রি-ওপেনিং সেশন চালু আছে।’

কী বলছেন বাজার-সংশ্লিষ্টরা

কারসাজিকারীদের সুবিধা দিতেই বিএসইসি ফের প্রি-ওপেনিং সেশন চালু করছে। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কোনো সুবিধা হবে না, সুবিধা হবে কারসাজিকারীদের।

তারা লেনদেনের আগে ওপরের দামে বা নিচের দামে ইচ্ছামতো লাখ লাখ শেয়ার বাই-সেল অফার বসিয়ে শেয়ার দামে প্রভাব ফেলার সুযোগ পাবে।

বিএসইসির আদেশে বলা হয়, ২৫ সেপ্টেম্বর সকাল ৯টা ২৫ মিনিট থেকে ৯টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত শেয়ার কেনাবেচার প্রিঅর্ডার দিতে পারবেন বিনিয়োগকারীরা। মূল লেনদেন হবে দুপুর ১টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত। আর পোস্ট ক্লোজিং সেশনের সময় ১টা ৫০ মিনিট থেকে ২টা পর্যন্ত।

কারসাজি যাতে না করতে পারে, বিএসইসি সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করছে—বিএসসির এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বাজার-সংশ্লিষ্টরা ব্যক্তিরা বলছেন, সাম্প্রতিককালে বিএসইসির নাকের ডগায় বেশ কয়েকটি শেয়ারে বড় কারসাজি হয়েছে এবং হচ্ছে। কিন্তু বিএসইসি দেখেও দেখে না। যা সাধারণ বিনিয়োগকারীরাও বুঝতে পারছে।

তারা বলছেন, শেয়ারগুলোর কারসাজির খবর গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করছে। এতেও বিএসইসির ঘুর ভাঙছে না। কারসাজিকারীরা কারসাজি করে নিরাপদে শেয়ার থেকে বেরিয়ে যায়, তখন বিএসইসির ঘুম ভাঙে, লোক দেখানো তোড়জোড় শুরু করে।

প্রি-ওপেনিং সেশন

বিএসইসি গতকাল বৃহস্পতিবার এই সংক্রান্ত আদেশের মাধ্যমে দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে জানিয়েছে, আগামী রোববার থেকে চালু হবে প্রি-ওপেনিং ব্যবস্থা। প্রি-ওপেনিং সেশনের সময় রাখা হয়েছে ৫ মিনিট।

অর্থাৎ সকাল সাড়ে ৯ টায় লেনদেন শুরুর ৫ মিনিট আগে থেকেই শেয়ার কেনাবেচার অর্ডার দিয়ে রাখা যাবে ঢাকা ও চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে।

প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি।
প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের পছন্দের তালিকায় ১৩ বীমার শেয়ার

বিএসইসির আদেশে বলা হয়, ২৫ সেপ্টেম্বর সকাল ৯টা ২৫ মিনিট থেকে ৯টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত শেয়ার কেনাবেচার প্রিঅর্ডার দিতে পারবেন বিনিয়োগকারীরা। মূল লেনদেন হবে দুপুর ১টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত। আর পোস্ট ক্লোজিং সেশনের সময় ১টা ৫০ মিনিট থেকে ২টা পর্যন্ত।

এর আগে ২০২০ সালের অক্টোবরে শেয়ারবাজারে প্রি-ওপেনিং সেশন এবং পোস্ট-ওপেনিং সেশনের চালু করা হয়। শেয়ারবাজারে ধারাবাহিক দরপতনের মধ্যে গত ২২ মে প্রি ওপেনিং সেশন বন্ধ করে দেওয়া হয়।

প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি।
লাগামহীন ওরিয়নের শেয়ার, দেখার যেন কেউ নেই!

ওই সময় এই সিদ্ধান্তের কারণ হিসেবে কারসাজির বিষয়টি উঠে আসে। লেনদেন শুরুর আগেই শেয়ারের সার্কিট ব্রেকারের সর্বনিম্ন দরে বিপুলসংখ্যক শেয়ার বসিয়ে রাখা হয়। যদিও পরবর্তী সময়ে এসব কার্যাদেশ বাতিল কিংবা পরিবর্তন হয়ে যায়। কিন্তু লেনদেনের শুরুতেই শেয়ারবাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। আতঙ্কে বাজারে দরপতন হতে থাকে।

অন্যদিকে, প্রি-ওপেনিং সেশনে দিনের সর্বোচ্চ দরে লাখ লাখ শেয়ারের বাই অফার বসিয়ে শেয়ার দামে প্রভাব বিস্তার করে কারসাজিকারীরা। প্রি-ওপেনিং সেশন বন্ধের এটিও অন্যতম যুক্তি ছিল।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com