ব্রুনাইয়ের এলএনজি আসছে আগামী বছরের শুরুতে

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এবং ব্রুনাইয়ের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্বালানি উপমন্ত্রী ইয়ং মুলিয়া।
জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এবং ব্রুনাইয়ের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্বালানি উপমন্ত্রী ইয়ং মুলিয়া।ছবি : সংগৃহীত

আগামী বছরের শুরুতে ব্রুনাই থেকে এলএনজি পাওয়া যাবে। শুরুতে বছরে এক থেকে দেড় মিলিয়ন টন এলএনজি আমদানি হবে। ১০ থেকে ১৫ বছর মেয়াদি চুক্তির আওতায় এই এলএনজি আমদানি হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার ব্রুনাইয়ের রাজধানী দারুসসালামে বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে জ্বালানি সহযোগিতা নিয়ে দ্বিপক্ষীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সভায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এবং ব্রুনাইয়ের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্বালানি উপমন্ত্রী ইয়ং মুলিয়া দাতো সেরি পাদুকা আয়ং হাজি মাতসাটেজা বিন সোকাইয়া নিজ নিজ দেশের পক্ষে প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) এবং অন্যান্য পেট্রোলিয়াম পণ্য সরবরাহে দীর্ঘমেয়াদি সহযোগিতার প্রক্রিয়া নিয়ে এই দ্বিপক্ষীয় সভা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ব্রুনাই থেকে বার্ষিক ১ থেকে দেড় মিলিয়ন টন এলএনজি ২০২৩ সালের প্রথম থেকেই পেতে চাচ্ছি। ১০-১৫ বছর মেয়াদি চুক্তি হতে পারে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে ব্রুনাই থেকে গড়ে ২ লাখ ১০ হাজার টন ডিজেল ডেফার্ড পেমেন্টে আমদানির বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। এসব বিষয়ে নতুন করে চুক্তি করতে হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ব্রুনাইয়ের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জ্বালানিবিষয়ক স্থায়ী সচিব ইয়ং মুলিয়া আযহার বিন হাজি ইয়ায়া, জ্বালানি বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ নিজাম বিন ইজমি, পেট্রোলিয়াম অথরিটির পরিচালক আড্রিয়াম ওয়াং কাই মিং, জ্বালানি বিভাগের জ্বালানি অংশীদারিত্ব ব্যবস্থাপনা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক হাজি মো. জাকি বিন হাজি হাসানুল আস’সারি ছিলেন।

বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের ছিলেন জ্বালানি বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মাহবুব হোসেন, বিপিসির চেয়ারম্যান এবিএম আজাদ, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান, রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক যাবেদ চৌধুরী ও ব্রুনাইয়ে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নাহিদা রহমান সুমনা।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com