নতুন ব্যবসা শুরুর আগে যা মনে রাখা জরুরি

নতুন ব্যবসা শুরুর আগে যা মনে রাখা জরুরি
প্রতীকী ছবি।

করোনা মহামারির সময় অনেকেই চাকরি হারিয়েছেন। কেউ কেউ আবার মহামারির কারণে চাকরি ছেড়েও দিয়েছেন। পৃথিবীতে অনেক ব্যক্তিই আছেন যারা মনে করেন তারা অন্যের অধীনে কাজ করবেন না। এ ধরনের মানুষ নিজে কিছু একটা করতে চান, যেখানে তিনি নিজেই বস থাকবেন। তাই তারা নিজের ব্যবসা শুরু করেন।

একটি দেশের বেকারত্বের হার কমাতে উদ্যোক্তা বাড়ানো জরুরি। তবে নতুন ব্যবসা শুরুর ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো অর্থনৈতিক বিষয়গুলো। কেননা কোনো ব্যবসা থেকে অনেক বেশি লাভবান হওয়াার সুযোগ থাকলেও ব্যবসার শুরু দিকে খরচই বেশি হয়। এছাড়া ক্ষতির বিষয় মাথায় রেখেই একটা ব্যবসায় নামতে হয়। এসময় অনেকে না বুঝে অপ্রয়োজনীয় খাতে অতিরিক্ত টাকা খরচ করে ফেলে। ফলে পরবর্তীতে প্রয়োজনের সময় পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় বিপাকে পড়তে হয় তাদের।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষুদ্র ব্যবসা সংগঠনের মতে, প্রতি তিনটি ক্ষুদ্র ব্যবসার মধ্যে দুটি লাভজনক ও টেকসই হয়। বাকি একটি ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে ধ্বংস হয়ে যায়।

তাই নতুন ব্যবসা শুরুর সময় নিজের মূলধন অতিমাত্রায় খরচ না করে তা বাঁচান। কারণ এটি পরবর্তীতে আপনার কাজে লাগতে পারে। নতুন ব্যবসা শুরু আগে আপনি তিনটি ‍উপায়ে নিজের টাকা বাঁচাতে পারেন। গত ৬ এপ্রিল এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায় মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

চলুন তবে নতুন ব্যবসায় কীভাবে খরচ সাশ্রয়ী করবেন তা জেনে নেওয়া যাক?

প্রতীকী ছবি।

১. অর্থনৈতিক ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকুন

বেশিরভাগ ব্যবসায়ীই ব্যবসা শুরুর কয়েকমাস কোনো টাকা লাভ কিংবা উপার্জন করতে পারে না। তাই আপনি যদি ব্যবসায় সম্পূর্ণ মনোযোগ দিতে চান তবে আপনার মাথা রাখতে হবে যে সম্প্রতি আপনি কোনো টাকা উপার্জন করতে পারছেন না। তাই নতুন ব্যবসা শুরুর আগেই নিজের সঞ্চয়কে আরও বাড়ানোর চেষ্টা করেন। এতে পরবর্তীতে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় খরচ বহন করতে পারবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান ইউবিকিউটি রিটায়ারমেন্ট প্লাস সেভিংসের প্রতিষ্ঠাতা ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চাদ পারকস বলেন, নতুন ব্যবসা শুরুর পরবর্তী ৯ মাস আপনার কোনো উপার্জন হবে না তা ভেবে রাখুন। এজন্য আগামী ৯ মাস খরচ হতে পারে এমন কিছু অর্থ আগে থেকে উঠিয়ে রাখুন। এই টাকা পুরোপুরি শুধুমাত্র ব্যবসার কাজে খরচ করার চেষ্টা করবেন।

এছাড়া ব্যবসা থেকে অর্থ উপার্জন শুরু হলে আপনার মূলধনের টাকা সরিয়ে রাখার চেষ্টা করুন। ব্যবসা থেকে আসা টাকাই পুনরায় ব্যবসার কাজে লাগান। এতে আপনার ব্যবসার সঠিকভাবে পরিচালনার পাশাপাশি সঞ্চয়ও করতে পারবেন।

প্রতীকী ছবি।

২. নিজের বেতন নির্ধারণ করুন

আপনি যদি মনে করেন যে নিজের ব্যবসার পুরো টাকাটাই নিজের তবে আপনি ভুল করছেন। কারণ নিজের টাকা ভেবে পুরোটাই যদি খরচ করে ফেলেন তবে দিন শেষে আপনার হাত ফাঁকা হয়ে যাবে। এতে যেমন আপনি সংকটের মুখে পড়বেন ঠিক তেমনই ব্যবসাও বিপর্যস্ত হবে। তাই নিজেকেও বেতনভুক্ত কর্মচারী ভাবুন।

নিজের বেতন নির্ধারণের ফলে আপনি কিছু টাকা সঞ্চয় করতে পারবেন। এছাড়া পরবর্তীতে নিজের ব্যবসার জন্য সেগুলো প্রয়োজনে বের করতে পারবেন। পাশাপাশি এই টাকা আপনার অবসরে কাজে দিবে।

যুক্তরাষ্ট্রের আর্থিক পরিকল্পনাবিদ এবং ফোকাল পয়েন্ট আর্থিক পরিকল্পনার প্রতিষ্ঠাতা মার্কাস ব্লানচার্ড বলেন, মানুষ অভ্যাসের দাস। তাই নিজের প্রতিষ্ঠান থেকে শুরুতে বেতন নিতে খারপ লাগলেও পরে তা অভ্যাস হয়ে যাবে।

প্রতীকী ছবি

৩. ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে অবসরের সম্পদ ভাবা থেকে বিরত থাকুন

বিশ্বের অনেক ব্যক্তি আছেন যারা নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে অবসরে যাওয়ার সম্পদ হিসেবে ব্যবহার করেন। অর্থাৎ অবসরে ভালোভাবে জীবনযাপনের জন্য বৃদ্ধ বয়সে অনেকেই উচ্চ মূল্যে তা বিক্রি করে দেয়। তবে এই ধারণাকে ভুল হিসেবে দেখছেন পরিকল্পনাবিদরা। নিজের সম্পদকে বিক্রি না করে কিংবা অন্যকে না দিয়ে নিজ দায়িত্বে তা রেখে তদারকির পরামর্শ দেন তারা।

চাদ পারকস বলেন, যেকোনো সময়ে আপনার ব্যবসার সঙ্গে অনেক কিছুই ঘটতে পারে। কোনো যুদ্ধ কিংবা মহামারির কারণে ব্যবসায়িকভাবে যেকোনো ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন। তাই নিজের ব্যবসাকে অন্যের কাছে না দিয়ে নিজের দায়িত্বে রাখুন। এতে প্রতিকূল মূহুর্তে আপনি ব্যবসায়ে বৈচিত্র্য আনতে পারবেন। এর ফলে ক্ষতির মুখ থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ব্যবসায় সফল হওয়া সম্ভব।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com