দুই বিলিয়ন ডলার বাজেট সহায়তার প্রতিশ্রুতি এডিবির

মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে বৈঠকে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিন্টিং।
মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে বৈঠকে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিন্টিং।ছবি : সংগৃহীত

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট বাস্তবায়নে দুই বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা দেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিন্টিং। তিনি জানান, সরকারের উন্নয়ন লক্ষ্যের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে এ ঋণ দেওয়া হবে।

আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে আয়োজিত বৈঠকে ঋণ সহায়তার বিষয়ে এডিবির সর্বশেষ অবস্থানের কথা জানান এডিমন গিন্টিং।

আগামী ২৬ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর সময়ের মধ্যে এডিবি বোর্ডের ৫৫তম বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় অংশগ্রহণের জন্য অর্থমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানাতে এ সৌজন্য সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়।

এ ছাড়া সাক্ষাতে বাংলাদেশের সঙ্গে এডিবির ঐতিহাসিক সম্পর্কের নানা দিক, বিভিন্ন প্রকল্পের ঋণ সহায়তার হালনাগাদ আলোচনা ও বাংলাদেশের অর্থনীতির নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

বাংলাদেশে উন্নয়ন সহায়তার ক্ষেত্রে এডিবি প্রধানত বিদ্যুৎ, শিক্ষা, পরিবহন, জ্বালানি, পানিসম্পদ, কৃষি, স্থানীয় সরকার, সুশাসন, আর্থিক ও বেসরকারি খাতকে প্রাধান্য দেয়।

এডিবি বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী। এ যাবৎ বাংলাদেশ সরকারকে ২৭.৫৫৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ঋণ সহায়তা প্রদান করেছে সংস্থাটি।

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টরের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে ২০২৩ সালে বাংলাদেশ ও এডিবির ৫০ বছর পূর্তি উদযাপনের বিষয়েও আলোচনা হয়। পাশাপাশি বাংলাদেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে সরকারের গৃহীত কার্যক্রমের নানা দিক নিয়েও আলোচনা হয়।

এ সময় কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিন্টিং অর্থমন্ত্রীর কাছে বাংলাদেশের অর্থনীতি ও কোভিড-১৯ মহামারির ক্রান্তিকালে অর্থনীতির চাকা সচল রাখায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাংলাদেশ অন্যতম সেরা উদাহরণ স্থাপন করেছে।

আগামীতে পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে এডিবির দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে।

এ মহামারি কাটিয়ে উঠতে বাংলাদেশের সামাজিক এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তা পুনরুদ্ধারে এডিবি শুরু থেকেই পাশে থেকে সহযোগিতা করছে এবং ভবিষ্যতেও  তারা পাশে থাকবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এডিমন গিন্টিং। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের গ্রামীণ ও নগর উন্নয়নের ক্ষেত্রে সহায়তা অব্যাহত রাখাসহ জলবায়ু সহনশীল উন্নয়ন বিনিয়োগকে উৎসাহিত করবে এডিবি।

এদিকে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় অর্থমন্ত্রী শুরুতেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা সোনার বাংলা বিনির্মাণের যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, সে স্বপ্ন পূরণে তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষ, যোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত এবং সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।’

এ সময় অর্থমন্ত্রী করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে বাংলাদেশের সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রভাব উত্তরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশকে সহায়তার জন্য এডিবিকে ধন্যবাদ জানান। বিশেষ করে এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এডিবিকে আরও উন্নয়ন সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান। সামগ্রিকভাবে উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ ও এডিবির মধ্যে এ ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com