দেশীয় পণ্যের সমাহারে শুরু এসএমই মেলা

এসএমই পণ্য মেলা।
এসএমই পণ্য মেলা।পুরোনো ছবি

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিক্রয়, স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাজার সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ১০ দিনব্যাপী দশম জাতীয় এসএমই পণ্যমেলা শুরু হয়েছে। মেলায় শতভাগ দেশীয় পণ্যের সমাহার নিয়ে এসেছেন সারা দেশের উদ্যোক্তারা।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে (বিআইসিসি) মেলার উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা, এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন, ফাউন্ডেশনের পরিচালক পর্ষদ সদস্য এনায়েত হোসেন চৌধুরী।

এ সময় শিল্পমন্ত্রী বলেন, টেকসই ও গুণগত শিল্পায়ন সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত রূপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন ও শিল্পখাতের গুণগত পরিবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে সরকার কাজ করায় জিডিপিতে শিল্প খাতের অবদান ক্রমেই বাড়ছে। ইতোমধ্যে সার্বিক শিল্প খাতের অবদান জিডিপিতে ৩২ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। দেশে বর্তমানে প্রায় ৭৮ লাখ এমএসই শিল্প গড়ে উঠেছে। এসব এসএমই শিল্প ডিজিপিতে শতকরা ২৫ ভাগ এবং মোট শিল্প কর্মসংস্থানে শতকরা ৮০ ভাগ অবদান রাখছে, যার ক্রমবিকাশমান ধারায় ভর করে আমরা ইতোমধ্যেই স্বল্পোন্নত দেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নিত হয়েছি, যার স্বীকৃতি মিলবে ২০২৬ সালে।

শিল্পমন্ত্রী জানান, এই ধারাবাহিক উন্নতি ধরে রাখতে এসএমই উদ্যোক্তাদের আরও বেশি অর্থায়ন দরকার। এর জন্য সরকারের পাশাপাশি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সবার ভূমিকা রাখা জরুরি। কারণ, এসএমই উদ্যোক্তারা ঋণ নিয়ে তা সময়মতো পরিশোধ করেন। তাদের ঋণ দিলে ব্যাংকেরও কোন ক্ষতি হবে না। জানা গেছে, দশ দিনব্যাপী এই মেলা চলবে আগামী ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত। দর্শনার্থীদের জন্য প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকবে এই মেলা। শতভাগ দেশীয় পণ্যের এই মেলায় উদ্যোক্তাদের জন্য মোট ৩৫০টি স্টল রয়েছে। এবারের মেলায় অংশগ্রহণকারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে রয়েছে ৬০ শতাংশ নারী এবং ৪০ শতাংশ পুরুষ।

মেলায় অংশ নিচ্ছে ফ্যাশন ডিজাইনিং, খাদ্য, কৃষি, হস্ত ও কারুশিল্প, চামড়াজাত, পাটজাত, আইসিটি, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স, প্লাস্টিকসহ বিভিন্ন পণ্যের প্রতিষ্ঠান। তাছাড়া এ মেলায় এসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য সহজ অর্থায়ন, নারী-উদ্যোক্তা, প্রযুক্তি, আইসিটি ও ক্লাস্টারের ওপর আয়োজন করা হবে ৫টি সেমিনার।

এর আগে, গত ৯টি জাতীয় এসএমই পণ্যমেলায় এসএমই ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত প্রায় দুই হাজার ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা প্রায় ৩২ দশমিক ৮৮ কোটি টাকার পণ্য বিক্রয় এবং প্রায় ৫৩ দশমিক ৫০ কোটি টাকার অর্ডার গ্রহণ করে। এ ছাড়া সারা দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য বিভাগ ও জেলায় ১২৬টি আঞ্চলিক-বিভাগীয় এসএমই পণ্যমেলার আয়োজন করে এসএমই ফাউন্ডেশন। এবার মেলায় দেশীয় উৎপাদনকারী অথবা সেবামূলক মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারাই মেলায় পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়ের সুযোগ পেয়েছেন। বিদেশি আমদানিকৃত পণ্যমেলায় প্রদর্শন কিংবা বিক্রয় করা যাবে না।

দেশব্যাপী এসএমই প্রতিষ্ঠানসমূহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন করছেন। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প-উদ্যোক্তারা অনেক উন্নত মানের পণ্য উৎপাদন করলেও বিপণন কাজে জ্ঞানের অভাবে নানা সমস্যার সম্মুখীন হন। উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা অর্জনের জন্য বাজার সংযোগ ও সম্প্রসারণ জরুরি। এসএমইদের পণ্য বিপণনের সুযোগ বাড়ানোর জন্য ফাউন্ডেশন পণ্যের বাজারজাতকরণে সহায়তা দিয়ে থাকে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com