ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত আদালত বর্জনের সিদ্ধান্ত আইনজীবীদের

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতি কার্যালয়ে বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতি কার্যালয়ে বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত।ছবি : সংগৃহীত

দাবি আদায় না হওয়ায় চতুর্থ দফায় আদালত বর্জন কর্মসূচি আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত বাড়িয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতি। আজ মঙ্গলবার তৃতীয় দফায় বর্ধিত কর্মসূচির শেষ দিনে আবারও ৬ দিনের জন্য আদালত বর্জন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে জেলা আইনজীবী সমিতি।

নতুন কর্মসূচির আওতায় আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত জেলা ও দায়রা জজ শারমিন নিগার এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক মোহাম্মদ ফারুকের আদালত বর্জন করবেন আইনজীবীরা। মঙ্গলবার আইনজীবী সমিতির সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ সময় আদালতের কোনো বিচারিক কার্যক্রমে অংশ নিবেন না আইনজীবীরা।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট তানভীর ভুঁইয়া জানান, ২৪ জানুয়ারি আল্টিমেটামের শেষ দিনেও দাবি আদায় না হওয়ায় কর্মসূচি বাড়ানো হয়েছে। আগামী ৩০ জানুয়ারির মধ্যে জেলা জজ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এবং আদালতের নাজিরকে অপসারণ করার দাবি আদায় না হলে আইনজীবীদের সর্বদলীয় স্ট্যান্ডিং কমিটি পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

উল্লেখ্য, গত ১ ডিসেম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এ আইনজীবীরা মামলা দাখিল করতে গেলে বিচারক মোহাম্মদ ফারুক মামলা না নিয়ে আইনজীবীদের সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ করেন আইনজীবীরা। এ ঘটনায় ২৬ ডিসেম্বর সমিতির সভা করে আইনজীবীরা ১ জানুয়ারি থেকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক মোহাম্মদ ফারুকের আদালত বর্জনের ঘোষণা দেয়।

এদিকে বিচারকের সঙ্গে অশোভন আচরণের অভিযোগে ৪ জানুয়ারি কর্মবিরতি পালন করেন আদালতের কর্মচারীরা। এ অবস্থায় জেলা জজ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ ও আদালতের নাজির মোমিনুল ইসলামের অপসারণ চেয়ে ৫ জানুয়ারি থেকে পুরো আদালত বর্জনের লাগাতার কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন আইনজীবীরা। পরবর্তীতে পুরো আদালতের পরিবর্তে জেলা জজ ও নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইবুন্যাল-১ আদালত বর্জন করে আসছেন আইনজীবীরা।

এ ছাড়াও বিচারকের সঙ্গে অশোভন আচরণ ও অশালীন স্লোগান দেওয়ার অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ ২৪ আইনজীবীকে দু’দফায় তলব করেছেন উচ্চ আদালত।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
logo
kalbela.com