‘বখাটেদের’ ভয়ে মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে কিশোরী

মায়ের পাশে দাঁড়িয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রী।
মায়ের পাশে দাঁড়িয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রী।ছবি : কালবেলা

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় দুই বখাটের ভয়ে তিন দিন ধরে মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে এক কিশোরী।

দাখিল পরীক্ষার্থী ওই ছাত্রীর অভিযোগ, মাদ্রাসায় যাওয়া-আসার পথে স্থানীয় আরিফ ও সুমন নামে দুই যুবক নিয়মিত তাকে উত্ত্যক্ত করেন। এর প্রতিবাদ করায় বখাটেরা এবং তাদের স্বজনরা মিলে ছাত্রীর পরিবারের ওপর চড়াও হয়। এতে আহত হন ছাত্রীর বৃদ্ধা নানি মরিয়ম বিবি। তাকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ বুধবার দুপুরে ভুক্তভোগী ছাত্রী ও তার মা সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেছেন। এ ঘটনায় গত সোমবার ছাত্রীর মা ছয়জনের নাম উল্লেখ করে সদর মডেল থানায় অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২১ জানুয়ারি দুপুরে মাদ্রাসা থেকে বাড়ি ফিরছিল ওই কিশোরী। সঙ্গে তার নানিও ছিলেন। এ সময় আরিফ ও সুমন তাদের পথরোধ করেন। মেয়েটির নানি তখন তাদের বাধা দেন। পরে অভিযুক্তরা বাড়িতে হামলা চালিয়ে বৃদ্ধাকে মারধর করে আহত করেন। এ ঘটনায় কোনো আইনগত ব্যবস্থা নিলে ফের মারধরের হুমকি দেন তারা। এতে আরিফ, তার বাবা সেলিম, মা আমেনা বেগম, আলী আহমেদ, তার স্ত্রী কুলসুম বেগম ও সুমনকে অভিযুক্ত করা হয়।

ওই ছাত্রী বলে, ‘আরিফ ও সুমন আমার ক্ষতি করার হুমকি দিচ্ছে। সামনে আমার পরীক্ষা কিন্তু তাদের ভয়ে মাদ্রাসায় যেতে পারছি না।’

ছাত্রীর মা বলেন, ‘থানায় অভিযোগ করার পর থেকে গত দুদিন আমি বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। আমার মা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তাকেও দেখতে যেতে পারছি না। দোকানের সামনে অভিযুক্তরা জড়ো হয়ে থাকে। বের হলেই তারা আমাকে মারধর করার হুমকি দিয়েছে।’

আরিফের বাবা মো. সেলিম জানান, স্থানীয় ফরাশগঞ্জ বাজারে তার ছেলের ফার্মেসি রয়েছে। তার স্ত্রী-সন্তানও আছে। ওই ছাত্রী তার ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলেছে। মেয়েটির নানিকেও তারা কেউ মারধর করেননি।

অভিযুক্ত আলী আহমেদ বলেন, ঘটনাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। অভিযোগকারী নারী মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে। এর আগেও ওই নারী তাদের মামলা দিয়ে হয়রানি করেছেন।

লিখিত অভিযোগ পাওয়ার কথা নিশ্চিত করে লক্ষ্মীপুর সদর থানার ওসি মোসলেহ উদ্দিন বলেছেন, তারা এ ঘটনায় ব্যবস্থা নেবেন।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
logo
kalbela.com