কুমিল্লার সমাবেশে সরকারকে লালকার্ড দেখাবে জনতা : খন্দকার মোশাররফ

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন খন্দকার মোশাররফ।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন খন্দকার মোশাররফ। ছবি : কালবেলা

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, কুমিল্লার মুক্তিকামী ঐক্যবদ্ধ জনতা ঐতিহাসিক টাউন হল মাঠ থেকে এ সরকারকে ‘লালকার্ড’ প্রদর্শন করবে।

এ ছাড়া কুমিল্লায় বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ ঘিরে নেতাকর্মীদের ওপর হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুর ও পথে পথে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির এই নেতা।

আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কুমিল্লা নগরীর মনোহরপুর এলাকায় খন্দকার হক টাওয়ারের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন তিনি।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ ঘিরে কুমিল্লায় নেতাকর্মীদের মাঝে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। তারা দুদিন আগে থেকে সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে কুমিল্লায় বিএনপির লক্ষাধিক নেতাকর্মী ও সমর্থক অবস্থান নিয়েছেন। কিন্তু কুমিল্লায় বিএনপির এই গণসমাবেশে ব্যাপক সংখ্যক মানুষের উপস্থিতির বিষয়টি আঁচ করতে পেরে সরকারদলীয় নেতাকর্মী ও পুলিশ বাহিনী কুমিল্লা বিভাগের বিভিন্ন জেলা উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে নারকীয় তাণ্ডব শুরু করেছে। তাদের হিংস্রতা থেকে নারী-শিশুরাও রেহাই পাচ্ছে না। তারা বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সেখানে তাদের না পেয়ে পরিবার-পরিজনের ওপর হামলা, ভাঙচুর, বাড়ির সামনে হেলমেট পরে সশস্ত্র অবস্থায় মোটরসাইকেল মহড়া ও হুমকি-ধমকি দিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লা বুলু, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক এবং কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাজি আমিন উর রশিদ ইয়াছিন, কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক উদবাতুল বারী আবু, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব হাজি জসিম উদ্দিন, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব ইউসুফ মোল্লা টিপুসহ বিএনপির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন খন্দকার মোশাররফ।
১০ ডিসেম্বর ঢাকায় সর্বকালের সর্ববৃহৎ গণসমাবেশ হবে : রিজভী

সংবাদ সম্মেলনে ড. মোশাররফ বরেন, গণসমাবেশের প্রচারণা চালানোর সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে নয়ন নামে আমাদের এক ছাত্রদল নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। পরে পুলিশ উল্টো বিএনপির ১৭ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১৫০ জনকে আসামি করে মামলা করেছে। এ মামলায় তারা ইতোমধ্যে রফিক ও সাইদুল নামে দুজনকে গ্রেপ্তার করে ফেলেছ।

তিনি বলেন, কুমিল্লার লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গত ১০/১২ দিন ধরে তাণ্ডব চালাচ্ছে সরকারদলীয় সন্ত্রাসীরা। সেখানে পুলিশ পরিচয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করছে। লাকসামে পৌরসভা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মনির আহমেদের বাড়িতে হুমকির পাশাপাশি হামলা চালিয়েছে। পুনরায় হামলার আশঙ্কায় মনির এখন এলাকা ছাড়া। লাকসাম-মনোহরগঞ্জের নেতাকর্মীরা যেন সমাবেশে আসতে না পারে সেজন্য তাদের প্রকাশ্যে হুমকি দিচ্ছে।

তিনি বলেন, চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলায় কুমিল্লার গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তল্লাশি ও গ্রেপ্তার করছে পুলিশ। এ পর্যন্ত আমাদের বেশ কয়েকজন নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে তারা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়াতেও একই অবস্থা উল্লেখ করে মোশাররফ বলেন, কুমিল্লা বিভাগের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় সরকারদলীয় নেতাকর্মী ও পুলিশ বাহিনী মিলে নারকীয় তাণ্ডব চালাচ্ছে। কিন্তু তারা যত যা-ই করুক কুমিল্লা বিভাগবাসীকে দমিয়ে রাখা যাবে না।

এ সময় বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশের জন্য বিএনপি সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বরাদ্দ দেওয়ার প্রসঙ্গে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ঢাকায় বিভাগীয় সমাবেশের জন্য আমরা নয়াপল্টন বরাদ্দ চেয়েছিলাম। সে সময় সরকারের অনেক মন্ত্রী বলেছেন আমাদের ইজতেমা মাঠ দেওয়া হবে। এখন সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ইজতেমা থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এসেছে, সোহরাওয়ার্দী থেকে পল্টনেও আসবে।

প্রসঙ্গত, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের মূল্যবৃদ্ধি, দলীয় নেতাকর্মীদের হত্যা, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীন নির্বাচনের দাবিতে ২৬ নভেম্বর কুমিল্লায় বিএনপি বিভাগীয় গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ ছাড়া বক্তব্য দেবেন স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাসসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। কুমিল্লা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব ইউসুফ মোল্লা টিপু ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্যসচিব মো. জসিম উদ্দিন সভা সঞ্চালনা করবেন বলে জানা গেছে।

ইতোমধ্যে ১০টি শর্তে স্থানীয় প্রশাসনের কাছ থেকে গণসমাবেশের অনুমতি পেয়েছে বিএনপি। এ সমাবেশকে সামনে রেখে বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। পোস্টার-ব্যানার-ফেস্টুনে বিলবোর্ডে ছেয়ে গেছে পুরো নগরী।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com