প্রেমে রাজি না হওয়ায় পরীক্ষার্থীকে পেটালেন শিক্ষক

মুন্সীগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ
মুন্সীগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ

মুন্সীগঞ্জ সদরে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনেই এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছাত্রীকে মারধর ও মোবাইল ছিনতাই করা হয়েছে। এ ঘটনায় মনির হোসেন সজল নামের শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ শহর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সদর থানা পুলিশের ওসি তারিকুজ্জামান।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার মুন্সীগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ গেটের সামনে ওই ছাত্রীকে মারধর-মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়া ও অপহরণের হুমকির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় একইদিন থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা।

মনির মুন্সীগঞ্জ কলেজের সাবেক শিক্ষক ও কোচিং সেন্টারে শিক্ষকতা করছেন। ভুক্তাভোগী সরকারি হরগঙ্গা কলেজের ছাত্রী ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী।

ভুক্তভোগীর ছাত্রীর বাবা আব্দুল আজিজ জানান, কোচিং সেন্টারে পড়ার সময় ওই শিক্ষকের সঙ্গে ছাত্রীর পরিচয় হয়। এরপর থেকেই বিভিন্ন সময় মনির হয়রানিসহ প্রেম নিবেদন এবং বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। তবে এতে রাজি না হওয়ায় ওই শিক্ষক ছাত্রীকে বিভিন্ন সময় রাস্তাঘাটে এবং মোবাইলে আপত্তিকর ছবি ভাইরাল করার ভয়ভীতি প্রদান করেন। যা নিয়ে এর আগে শিক্ষকের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে ভুক্তভোগীর বাবা। পরবর্তীতে বিবাদীর ভয়ে পরিবারসহ সদর থেকে সিরাজদিখান চলে যায়। মঙ্গলবার সিরাজদিখান থেকে ওই ছাত্রী তার মা ও মামাতো বোনকে সঙ্গে নিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়ার জন্য সদর উপজেলার সরকারি মহিলা কলেজ কেন্দ্রে আসে। পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনে পৌঁছালে তাদের বহনকারী মিশুক গাড়ি পথরোধ করে ছাত্রীকে জোর করে নামিয়ে মারধর ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। এ সময় ছাত্রীর মা ও মামাতো বোন বাধা দিলে অভিযুক্ত শিক্ষক তাদের ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়।

এ বিষয়ে ওসি তারিকুজ্জামান জানান, ভুক্তভোগীর বাবার মামলার প্রেক্ষিতে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে পাঠানো হবে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com