‘সর্বোচ্চ গোলদাতা’ সাবিনার বাড়িতে খুশির বন্যা

সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে ৮ গোল নিয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা সাবিনা।
সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে ৮ গোল নিয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা সাবিনা।ছবি : সংগৃহীত

সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ নারী দল চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় আনন্দের বন্যা বইছে সাবিনা-মাসুরার জেলা সাতক্ষীরায়। শহরে ও সবুজবাগে সাবিনাদের বাড়িতে গতকাল সোমবার বিকেল থেকে আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীরা খেলা দেখেছেন।

ফাইনালে গোল না পেলেও টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার গৌরবে উচ্ছ্বসিত সাবিনার পরিবারসহ সাতক্ষীরার ফুটবল অঙ্গনের সবাই।

সাবিনার মা মমতাজ বেগম জানান, বাংলাদেশের সাফল্যে তিনি খুবই উচ্ছ্বসিত। সেই ছোট থেকেই মেয়েটার ধ্যান-জ্ঞান এই ফুটবলকে নিয়ে। ৮ গোল নিয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ায় ভীষণ খুশি তিনি।

সাবিনার বড় বোন সালমা খাতুন বলেন, ‘সারা দিন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছি জয়ের খবরের জন্য। অবশেষে সন্ধ্যার পরপরই টিভির পর্দায় যখন ভেসে এলো বাংলাদেশ ৩-১ গোলে জয়ী, তখন মনে হয়েছিল, স্বপ্ন সার্থক হয়েছে আমার বোনটার।’

অন্যদিকে, সাতক্ষীরা সদরের বিনেরপোতায় নারী ফুটবল দলের অপর খেলোয়াড় মাসুরাদের বাড়িতেও চলছে জয়ের উৎসব। বাবা রজব আলী মাসুরাকে খেলতে দিতে চাইতেন না। স্থানীয় কোচ আকবর আলী ও মা ফাতেমা খাতুনের উৎসাহে নারী দলে শক্ত জায়গা করে নিয়েছেন মাসুরা।

মাসুরার মা ফাতেমা খাতুন বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ। ছোটবেলা থেকে মাসুরার খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ দেখে আমি তাকে খেলা চালিয়ে যেতে বলেছিলাম। কোচ আকবর আলীই আমার মেয়েকে এ পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছেন। দুর্ভাগ্য হলো, এত বড় জয় আকবর আলী দেখে যেতে পারলেন না। দুই বছর আগে তিনি মারা গেছেন।’

সাতক্ষীরা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আরিফ হোসেন প্রিন্স বলেন, ‘নারী ফুটবল দল সাফ চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় ভীষণ গর্ব অনুভব করছি। সাবিনা ও মাসুরার মতো খেলোয়াড়রা সাতক্ষীরার মাটি থেকে আজ জাতীয় দলে শক্ত জায়গা করে নিয়েছেন। তাদের এই সফলতার ধারা অব্যাহত থাকুক।’

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com