চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

প্রতীকী ছবি
প্রতীকী ছবি

গাজীপুরের টঙ্গীতে চিকিৎসকের অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার টঙ্গীর ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত লাভলী আক্তার এরশাদনগরের জাহাঙ্গীর মিয়ার মেয়ে এবং তিনি স্বামী মিজানুর রহমান টিটুর সঙ্গে একই এলাকায় বসবাস করতন।

নিহত লাভলীর খালাতো বোন নাজমা আক্তারের জানান, ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের চিকিৎসক সালমা নাহার লাভলীকে অচেতন না করিয়ে সিজারের মাধ্যমে সন্তান প্রসব করান। সিজারের পরই তার শারীরিক অবস্থার অবনিত হতে শুরু করে। রোগীর অবস্থার অবনতি হলে ওই দিন রাতেই তাকে ধানমন্ডির ল্যাবএইড হাসপাতালে নিয়ে যান তার স্বামী।

তিনি জানান, সেখান থেকে তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হলে লাভলীকে ফের ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে আনা হয়। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) বৃহস্পতিবার বিকেলে মারা যান লাভলী।

ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. হাসমত আলী বলেন, গাইনি চিকিৎসক সালমা নাহার খুব ভালোমানের একজন চিকিৎসক। এ পর্যন্ত তিনি অনেক রোগীর সিজার করেছেন। কিন্তু এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। সিজারের পর রোগীর খিচুনি শুরু হওয়ায় অবস্থার অবনতি হয়েছে।

প্রতীকী ছবি
ভ্যানে সন্তান প্রসবের সময় রাস্তায় ছিটকে পড়ল নবজাতক

স্বজনদের বিক্ষোভ

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার রাতে লাভলীর স্বজন ও এলাকাবাসী ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করে সড়ক অবরোধ করতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় অন্তত পাঁচজন আহত হন।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম জানান, প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎসকের অবহেলার অভিযোগ ওঠায় মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু নিহতের স্বজনরা পুলিশকে না জানিয়ে মরদেহ হাসপাতাল থেকে নিয়ে যায়। পরে পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য লাশ আনতে গেলে স্বজন ও এলাকাবাসী তাদের ওপর চড়াও হয়। একপর্যায়ে তারা সড়ক অবরোধ করতে চাইলে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com