আ.লীগের ভুলের জন্য জনগণের কাছে ক্ষমা চাইলেন হুইপ স্বপন

সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।
সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

আওয়ামী লীগের সব ভুলের জন্য জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ ও আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

তিনি বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ ফেরেশতাও না আবার শয়তানও না। যারা আওয়ামী লীগ করেন, তারা মানুষ, তারা বাঙালি। মানুষের দোষ এবং গুণ দুটিই আছে। আমরা দীর্ঘদিন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে রাষ্ট্র পরিচালনা করছি। দেশ অনেক দূর এগিয়েছি। একই সঙ্গে উন্নয়ন হয়েছে—মানব কল্যাণ হয়েছে। একই সঙ্গে পদ্মা সেতুসহ বিশাল বিশাল অবকাঠামো হয়েছে। একই সঙ্গে ক্ষুধামুক্তি হয়েছে। এরপরও বলতে চাই। সরকারের ভুল হতে পারে। আমাদের জনপ্রতিনিধি এবং নেতারা ভুল করতে পারেন। আমাদের সমস্ত ভুলের জন্য আমি দায়িত্বশীল রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে জনগণের কাছে নিঃশর্তভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সোনাইমুড়ী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে আজ বৃহস্পতিবার প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সংসদের হুইপ বলেন, ‘আজকের বিশ্ব বাস্তবতা খুবই কঠিন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্বের পরে মানবজাতির ওপর করোনা মহামারির মতো এত বড় সংকট কখনো নেমে আসেনি। করোনা সংকটের পর নতুন করে শুরু হলো রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধ। এ কারণে গোটা বিশ্বের অর্থনীতি টালমাটাল। আমাদের দেশেও তার ধাক্কা লেগেছে। কিন্তু আমাদের সৌভাগ্য। আমাদের একজন শেখ হাসিনা আছেন।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বাংলার প্রত্যেক মানুষকে ভালোবাসতেন। যে মানুষটি আওয়ামী লীগ করেন তাকেও ভালোবাসতেন। যে মানুষটি আওয়ামী লীগ করেন না করে তাকেও ভালোবাসতেন।’

‘যে মানুষটি বিএনপি করেন তিনিও বাংলার মানুষ। যে মানুষটি জামায়াত করেন তিনিও বাংলার মানুষ। যে মানুষটি জাতীয় পার্টি করেন তিনিও বাংলার মানুষ। যে মানুষটি কোনো দল করেন না তিনিও বাংলার মানুষ। বঙ্গবন্ধু প্রত্যেক মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর কথা বলে গেছেন।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমিনুল ইসলাম বাকেরের সভাপতিত্বে প্রথম অধিবেশন উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক এ এইচ এম খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য মাহমুদুর রহমান বেলায়েত, নোয়াখালী-২ আসনের সংসদ সদস্য মোরশের আলম, নোয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাড. শিহাব উদ্দিন শাহিন, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগে যুগ্ম আহ্বায়ক ও নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহিদ উল্যাহ খাঁন সোহেল, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী মো. জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

এরপর বেলা আড়াইটার সময় কাউন্সিলে নবনির্বাচিত সভাপতি হিসেবে সাবেক সভাপতি মমিনুল ইসলাম বাকের এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সাবেক সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাবুল বাবুর নাম ঘোষণা করা হয়। এরপর তিনজনকে সহসভাপতি, একজনকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও একজনকে ১ নম্বর সদস্য ও জেলা কমিটির সহসভাপতি হিসেবে ঘোষণা করে সম্মেলন সমাপ্ত করা হয়।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com