র‍্যাবের মতো নিষেধাজ্ঞার শিকার হতে পারে পুলিশ : হারুন

রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশ সমন্বয় কমিটি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশিদ হারুন।
রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশ সমন্বয় কমিটি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশিদ হারুন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ হারুন বলেছেন, আজকে পুলিশ যেভাবে অন্যায় এবং অবৈধভাবে জনগণের ওপর হয়রানিমূলক মামলা দায়ের করছে এবং যেভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে অতিসত্তর হয়তো পুলিশ বাহিনীও র‍্যাবের মতো নিষেধাজ্ঞার শিকার হবে।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী বিভাগীয় গণসামাবেশ বাধাগ্রস্ত করতে বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্য মামলা, পুলিশি হয়রানি, হামলা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশ সমন্বয় কমিটি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ পুলিশের যিনি আইজিপি র‍্যাবে থাকা অবস্থায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে জাতিসংঘ থেকে তিনি নিষেধাজ্ঞায় পড়েছেন। পুলিশ বাহিনী যদি নিষেধাজ্ঞায় পড়েন তাহলে দেশের জন্য ও জাতির জন্য কলঙ্ক এবং ভয়াবহ ক্ষতি হবে।

বিএনপির গণসমাবেশ বাধাগ্রস্ত করতে আওয়ামী লীগ সরকার পুলিশকে ব্যবহার করছে উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশ ঘিরে বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে যেসব মামলা হচ্ছে তার প্রতিটিতেই পুলিশ নিজেই বাদী হয়ে মামলা করছে। এই বিভাগের বিভিন্ন থানায় এরই মধ্যে পাঁচ হাজার অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। বিএনপির অফিসে গিয়ে আওয়ামী লীগের গুণ্ডারা ককটেল ফুটাচ্ছে, বিএনপি অফিসে গিয়ে তারাই বিভিন্ন রকম ঘটনা ঘটাচ্ছে, আর মামলা করা হচ্ছে আমাদের জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে। বলা হচ্ছে সেখান থেকে নাকি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। এসব মিথ্যা মামলায় যাদের সাক্ষী করা হচ্ছে তারা জানেই না কোথায় মশাল মিছিল হয়েছে, কোন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ হয়েছে।

বিএনপির এই সংসদ সদস্য দাবি করে বলেন, বিএনপির সমাবেশে মানুষের ভিড় দেখে সরকার ভয় পেয়েছে। সরকার আজকে সাংঘাতিকভাবে বেসামাল ও নড়বড়ে অবস্থার মধ্যে আছে। রাজশাহী বিএনপির দুর্গ। রাজশাহী বিভাগের সকল আসনে এক সময় জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা ছিলেন। রংপুর, সিলেট, বরিশালসহ দেশের অন্যান্য বিভাগীয় সমাবেশগুলোতে সরকার যানবাহন ও খাবার হোটেল বন্ধ করে দিলেও মানুষের ঢল নামে ওইসব সমাবেশে। আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশেও একই চিত্র থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহগঠনিক সম্পাদক শাহীন শওকত, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এরশাদ আলী ইশা, সদস্য সচিব মামুনুর রশিদ, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদ, মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, শফিকুল হক মিলনসহ মহানগর ও জেলা বিএনপির নেতারা।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com