প্রতিবন্ধী শিশুদের ৬০ শতাংশ স্কুলের বাইরে

প্রতিবন্ধী শিশুদের ৬০ শতাংশ স্কুলের বাইরে
ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী শিশুদের অর্ধেকেরও বেশি কোনো স্কুলে যায় না। যারা স্কুলে যায় তারা তাদের বয়স অনুপাতে শিক্ষাগতভাবে গড়ে দুই বছরের বেশি পিছিয়ে আছে। ইউনিসেফের সহায়তায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) করা ‘জাতীয় প্রতিবন্ধী ব্যক্তি জরিপ ২০২১’-এ এই তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবন্ধীদের নিয়ে জাতীয় পর্যায়ের এটাই বিবিএসের প্রথম জরিপ।

জরিপের তথ্য অনুযায়ী, ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী শিশুদের মধ্যে মাত্র ৬৫ শতাংশ শিশু প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এবং মাত্র ৩৫ শতাংশ শিশু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নথিভুক্ত আছে। মোট ৬০ শতাংশ প্রতিবন্ধী শিশু আনুষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে। অর্থাৎ তারা কোনো আনুষ্ঠানিক শিক্ষা বা স্কুলে যায় না।

সমীক্ষাটির ব্যাপারে বিবিএসের প্রকল্প পরিচালক ইফতেখাইরুল করিম বলেন, বিবিএস প্রথমবারের মতো প্রতিবন্ধী ব্যক্তি-সংক্রান্ত একটি জাতীয় জরিপ পরিচালনা করেছে। প্রতিবন্ধী শিশুরা বেড়ে ওঠার সময় কত প্রকার চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়, তা এ জরিপ থেকে পাওয়া তথ্য তুলে ধরেছে। প্রতিবেদনে প্রকাশিত তথ্য-উপাত্ত বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য পরিকল্পনা ও উদ্যোগ প্রণয়নে সরকারকে সহায়তা করবে।

জরিপে বলা হয়, বাংলাদেশের ১ দশমিক ৭ শতাংশ শিশু ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন, ২০১৩’-এ সংজ্ঞায়িত ১২ ধরনের প্রতিবন্ধিতার অন্তত একটি প্রতিবন্ধিতা নিয়ে বেঁচে আছে। অন্যদিকে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ শিশুর মধ্যে অন্তত একধরনের ‘ফাংশনাল ডিফিকাল্টি’ রয়েছে। ফাংশনাল ডিফিকাল্টির বিভিন্ন ধরনের মধ্যে রয়েছে দেখা, শোনা, আঙুল ব্যবহার করে সূক্ষ্ম কাজ করা, যোগাযোগ, শেখা, খেলা বা আচরণ নিয়ন্ত্রণ।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি শেলডন ইয়েট বলেন, বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী শিশুদের মধ্যে কতজন শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তা তুলে ধরেছে নতুন এই তথ্য। এই শিশুদের জন্য আমাদের আরও অনেক কিছু করা প্রয়োজন। আমাদের তাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা ও সেবা দিতে হবে এবং এমন একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক পরিবেশ তৈরি করতে হবে যেখানে তারা উন্নতি করতে পারে।

প্রতিবন্ধী শিশুদের ৬০ শতাংশ স্কুলের বাইরে
শিক্ষার্থী নির্যাতনের প্রতিবাদে ঢাবিতে মশাল মিছিল

প্রতিবন্ধী শিশুরা প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে যে সমস্যার সম্মুখীন হয় তার ওপরও জরিপে আলোকপাত করা হয়েছে। জরিপে বলা হয়, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মধ্যে যারা কাজ করার বয়সী তাদের মাত্র এক-তৃতীয়াংশ কর্মরত যেখানে পুরুষদের তুলনায় নারীদের কাজে নিযুক্ত না থাকার সম্ভাবনা অনেক বেশি। সরকারিভাবে নিবন্ধিত ৯০ শতাংশ প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সামাজিক সুরক্ষা হিসেবে ভাতা পান। তবে ৬৫ শতাংশ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিই অনিবন্ধিত আছেন।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
logo
kalbela.com