সন্তানের উপস্থিতিতে আদালতে মা-বাবার বিয়ে

শিশুসন্তানের উপস্থিতিতে আদালতে মা-বাবার বিয়ে।
শিশুসন্তানের উপস্থিতিতে আদালতে মা-বাবার বিয়ে। প্রতীকী ছবি

দুই বছরের শিশুসন্তানের উপস্থিতিতে আদালতে ধর্ষণ মামলার আসামির সঙ্গে ভুক্তভোগী নারীকে বিয়ে দেওয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ আদালতে পাঁচ লাখ টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে হয়।

এর আগে আসামি তৌহিদুল ইসলাম ও ভুক্তভোগী ওই নারীর বিয়ে আদালতে সম্পন্ন করতে অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তা মঞ্জুর করেন।

পরে পাঁচ লাখ টাকা দেনমোহরে কাজি ডেকে বিয়ে পড়ানো হয় তাদের। বিয়ের পর আসামিকে তার বাবা ও বাদীর জিম্মায় পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জামিন দেন আদালত।

আসামির সঙ্গে বাদীর বিয়ের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিলাম। আদালত আবেদন মঞ্জুর করেন। এরপর আদালতেই তাদের বিয়ে হয়।
আসামিপক্ষের আইনজীবী জাহেদ মিয়া।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ভুক্তভোগী তরুণী ২০২০ সালের জানুয়ারিতে আসামি তৌহিদুল ইসলামের বাসায় গৃহপরিচারিকা হিসেবে কাজ শুরু করেন। কিছুদিন পর থেকেই তরুণীকে নানাভাবে অনৈতিক প্রস্তাব দিতে থাকেন তৌহিদ।

ওই মাসেরই ১০ জানুয়ারি থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত তরুণীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন আসামি। এতে ওই তরুণী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে বাড্ডা থানায় মামলা করেন তিনি। এরপর ভুক্তভোগী তরুণী ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে ছেলেসন্তান জন্ম দেন, যার বয়স এখন দুই বছর।

শিশুসন্তানের উপস্থিতিতে আদালতে মা-বাবার বিয়ে।
কারাগারেই বাদীর মেয়ের সঙ্গে বিয়ে!

আসামিপক্ষের আইনজীবী জাহেদ মিয়া বলেন, আসামির সঙ্গে বাদীর বিয়ের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিলাম। আদালত আবেদন মঞ্জুর করেছেন। এরপর আদালতে তাদের বিয়ে হয়। এ ছাড়া আপসের শর্তে জামিন আবেদন করা হয়েছিল। আদালত ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জামিন মঞ্জুর করেছেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহমেদ বলেন, উভয় পক্ষের মধ্যে পারিবারিকভাবে আপস-মীমাংসা হয়েছে। আদালতের অনুমতি নিয়ে তাদের বিয়ে হয়েছে।

শিশুসন্তানের উপস্থিতিতে আদালতে মা-বাবার বিয়ে।
ভালোবেসে হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে বিয়ে করলেন নারী চিকিৎসক

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com