পিতৃতান্ত্রিক রীতিনীতি ও মূল্যবোধের শিকল ভাঙতে ‘নারীর রাতের যাত্রা’

নারীর রাতের যাত্রা’য় অংশগ্রহণকারী নারী অধিকার কর্মীরা।
নারীর রাতের যাত্রা’য় অংশগ্রহণকারী নারী অধিকার কর্মীরা।

বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় ‘নারীর রাতের যাত্রা’ আয়োজন করা হয়। নারীবাদী ও নারী অধিকারভিত্তিক প্রতিষ্ঠান প্রাগ্রসর এটি আয়োজন করে। এ সময় শ্লোগান, কবিতা ও গানে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানানো হয়। যাত্রাটি প্রাগ্রসর অফিস প্রাঙ্গণ থেকে রাত ১০টায় শুরু হয়ে রাত ১টা পর্যন্ত ঢাকার বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করে, টিএসসি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অবস্থান করে সংহতি প্রকাশের মধ্য দিয়ে।

নারী অধিকার আদায় কর্মী খুশি কবির, ফওজিয়া খোন্দকার ইভা, সংগীতশিল্পী শায়ানসহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। স্লোগান আর গানে ভরপুর নারীর রাতের যাত্রাটি বার্তা দেয় নারীর প্রতি সহিংসতা বিলোপের, আহ্বান জানায় সাধারণ মানুষের প্রতি।

নারী অধিকার কর্মীরা বলেন, নারীর প্রতি সমাজ আরোপিত সব ধরনের প্রতিবন্ধকতা ও লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতার মধ্যে একটি হলো নারীর ঘর থেকে বের হওয়ার সময় নির্ধারণ করে দেওয়ার মাধ্যমে, শুধু নারী হওয়ার কারণে নারীর চলাফেরাকে নিয়ন্ত্রণ করা। সমাজের মধ্যে অবস্থিত প্রচলিত পিতৃতান্ত্রিক রীতিনীতি, মূল্যবোধের দৃষ্টিতে সভ্য ও ভদ্র নারী কখনো রাতের বেলা বাইরে থাকে না।

নারীর সাথে রাতে ঘটে যাওয়া সহিংসতার ক্ষেত্রে, অপরাধীকে শাস্তির আওতায় না এনে উল্টো নারীকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়। সেই তথাকথিত দৃষ্টিভঙ্গির প্রতি, প্রতিবাদস্বরূপ এবং ১৬ দিনব্যাপী নারীর প্রতি সহিংসতা বিলোপ কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে, প্রাগ্রসর একটি নারীবাদী সংগঠনে আয়োজন করেছে ‘নারীর রাতের যাত্রা’ কর্মসূচিটি। সহায়তায় ছিল ডব্লিউভিএলবি, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন।

একটি নারীবাদী ও নারী অধিকারভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রাগ্রসর নারীর প্রতি হওয়া বৈষম্য ও সহিংসতা নির্মূলকরণের আন্তর্জাতিকভাবে পালিত কর্মকাণ্ডের অন্তর্গত ১৬ দিনব্যাপী নারীর প্রতি সহিংসতা বিলোপ পক্ষকাল নিয়মিত পালন করে থাকে। সেই লক্ষ্যে, এ বছরও ২৪ নভেম্বর-১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রাগ্রসরের আয়োজনে পালিত হতে যাচ্ছে নানা ধরনের কর্মসূচি, যার সূচনা ঘটেছে ‘নারীর রাতের যাত্রা’র মাধ্যমে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com