কাউন্টার মাস্টারকে বাস থেকে ফেলে দিয়ে হত্যার অভিযোগ

কাউন্টার মাস্টারকে বাস থেকে ফেলে দিয়ে হত্যার অভিযোগ
প্রতীকী ছবি

রাজধানীর গাবতলিতে দুই বাসের স্টাফদের মধ্যে হাতাহাতির এক পর্যায়ে এখলাছ উদ্দিন (৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত এখলাছ ঢাকা টু পাবনা মতিন ট্রাভেলসের কাউন্টার মাস্টার হিসেবে চাকরি করতেন।

আজ বুধবার বেলা ১২টার দিকে গাবতলী টার্মিনাল সংলগ্ন প্রধান সড়কে এ ঘটনাটি ঘটে। আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল সোয়া ৫টার দিকে মারা যান তিনি।

নিহত এখলাছের স্ত্রী পারভিন জানান, তাদের বাড়ি গাবতলী বাগবাড়ি চারআনি এলাকায়। দুই সন্তানকে নিয়ে সেখানেই থাকতেন।

পারভিন অভিযোগ করে বলেন, গাবতলী টার্মিনালের সামনের সড়কে পাবনাগামী মীম-ঐশী নামের একটি বাসের মধ্যে স্টাফদের সঙ্গে তার ঝগড়া হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে ওই বাসের স্টাফরা তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এতে সে মাথায় আঘাত পায়। পরে সেখানকার লোকজন তাকে দ্রুত আগারগাঁও নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

হাসপাতালে মতিন ট্রাভেলসের ম্যানেজার আব্দুর রব জানান, গাবতলী টার্মিনালের সামনের সড়কে পাবনাগামী মীম-ঐশী নামের একটি বাসে যাত্রী দেওয়া নিয়ে স্টাফদের সঙ্গে এখলাছের ঝগড়া হয়। এরপর জানতে পারি এখলাছ বাস থেকে পরে আহত হয়েছে। তবে তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছে নাকি পড়ে গিয়েছে এই বিষয়টি এখনো জানতে পারি নাই।

দারুসালাম থানার ওসি শেখ আমিনুল বাশার জানান, দুই বাসের স্টাফদের মধ্যে ঝগড়ার এক পর্যায়ে এখলাছ উদ্দিন বাস থেকে পড়ে গিয়ে আহত হয়। এহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত বাস স্টাফদের পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া জানান, ওই ব্যক্তিকে আহত অবস্থায় বেলা সাড়ে ৩টার দিকে স্বজনরা হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করে। বিকেল সোয়া ৫টার দিকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com