যেভাবে ছিনতাইকারীদের ধরিয়ে সাহসী নারীর তকমা পেলেন সেই তরুণী!

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পারিশা আক্তার।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পারিশা আক্তার।ছবি: সংগৃহীত

ছিনতাইকারী চক্রের দুই সদস্যকে ধরিয়ে ‘সাহসী নারীর’ তকমা পেয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্য প্রাণী বিভাগে মাস্টার্সের শিক্ষার্থী পারিশা আক্তার। সম্প্রতি এ নিয়ে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পরলে সকলের কাছে প্রশংসিত হন তিনি। শনিবার (২৩ জুলাই) এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন এ শিক্ষার্থী।

তিনি বলেন, ‘আমি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্য প্রাণী বিভাগে মাস্টার্স করছি। এছাড়া আমি হাতির উপর একটি থিসিস করছিলাম। আর আমার থিসিসের সকল তথ্য-উপাত্ত আমার মোবাইল ফোনে ছিল।’

‘ছিনতাইকারীকে কিছুক্ষণ পেটানোর পর তাকে বলা হয় আধাঘণ্টা আগে আমার ফোনও এখান থেকেই হারিয়ে গেছে, তা খুঁজে বের করে দে। তখন সে মোবাইল নেওয়ার কথা অস্বীকার করে এবং তাকে ছেড়ে দেওয়ার বিনিময়ে আমার মোবাইল চুরি করা ছিনতাইকারীকে ধরিয়ে দিবে বলে জানায় সে। পরে তার মোবাইল থেকে ফোন দিয়ে অপর ছিনতাইকারীকে ইত্তেফাকের গলিতে ডাকানো হয়। পরে কয়েকজন সাংবাদিকের সহায়তায় আসাদ মার্কেটের সামনে থেকে ওই ছিনতাইকারীকেও ধরা হয়। এসময় পুলিশ আসলে তাদের কাছে ছিনতাইকারীদের সোপর্দ করে দেওয়া হয়।’

পারিশা আক্তার

তিনি জানান, ‘গত ২১ জুলাই তানজিল পরিবহনের একটি বাসে চড়ে মিরপুর চিড়িয়াখানা থেকে বাসায় যাচ্ছিলাম। বাস কারওয়ান বাজারে পৌঁছালে বোনের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলার সময় এক ছিনতাইকারী বাসের জানালা থেকে আমার মোবাইল ছোঁ দিমেরে নিয়ে যায়। পরে ছিনতাইকারীর খোঁজে বাস থেকে নেমে তাকে আর দেখতে পান না। এরপর বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ইত্তেফাকের গলির সামনে খোঁজ করেন তারা। এসময় হতাশ হয়ে ফেরার পথে অপর এক ছিনতাইকারী আরেকজন ব্যক্তির ফোন ছিনতাই করে পালাতে দেখে তিনি ছিনতাইকারীকে জড়িয়ে ধরেন।’

জিডির দুই দিন পেরিয়ে গেলেও পুলিশ এখনো ফোন উদ্ধার করতে পারেনি উল্লেখ করে পারিশা বলেন, তেজগাঁও থানা শুরুতে মামলা করতে বললেও পরে এ ঘটনায় জিডি করেন তিনি। এসময় মোবাইলের আইএমই নম্বরও দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ঘটনার দিন রাত আড়াইটার দিকে আমার মোবাইল খোলা হয়েছিল। কারণ গুগলের মাধ্যমে দেখতে পাই যে রাত আড়াইটার দিকে আমার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইমো অ্যাকাউন্ট সক্রিয় করা হয়েছিল।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থী জানান, ছিনতাইকারী চক্রে পুরো তালিকা ও তাদের অবস্থান পুলিশের কাছে দেওয়া হয়েছিল। পাশাপাশি তার মোবাইল ছিনতাইকারীর যাবতীয় বর্ণনা পুলিশকে দেওয়া হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকালে অভিযান করার কথা জানালেও দুই দিনেও কোনো তথ্য দিতে পারছে না পুলিশ।

তিনি বলেন, সাহস সবার মাঝেই থাকে। তবে কেউ কেউ সাহস দেখায় এবং অনেকে দেখায় না। কিন্তু এই সন্ত্রাসবাদকে রুখতে হলে নারী-পুরুষ উভয়কেই সাহস দেখাতে হবে। এসময় কারো বিপদে এগিয়ে আসার জন্য দেশের জনগণের প্রতি আহ্বান জানান পারিশা।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com