পেশা ও নাম বদলে মাদকের কারবার চালাতেন ছাত্রলীগ নেতা হত্যার আসামি

মগবাজারে ছাত্রলীগ নেতা হত্যা মামলার অন্যতম আসামি ইকবাল হোসেন তারেককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।
মগবাজারে ছাত্রলীগ নেতা হত্যা মামলার অন্যতম আসামি ইকবাল হোসেন তারেককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।ছবি : সংগৃহীত

রাজধানীর মগবাজার এলাকায় রমনা থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মাহবুবুর রহমান রানা হত্যাকাণ্ডের ৯ বছর পর এ মামলার অন্যতম আসামি ইকবাল হোসেন তারেককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল বৃহস্পতিবার র‌্যাব-৩ এর একটি দল দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে।

আজ শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তথ্য জানান র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ।

নানা পেশার আড়ালে মূলত মাদকের কারবার করতেন তারেক। একাধিকবার গ্রেপ্তার হলেও পরিচয় গোপন করায় সে যে হত্যা মামলার আসামি তা কেউ বুঝতে পারেনি। তবে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকায় মাদক কারবারিদের মাধ্যমে তার প্রকৃত পরিচয় নিশ্চিত হয়ে গ্রেপ্তার করা হয়। 
মহিউদ্দিন আহমেদ, র‌্যাব কর্মকর্তা

তিনি বলেন, তারেক মগবাজার এলাকায় সুইফ ক্যাবল লিমিটেড নামের একটি ডিস ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। এর মালিক কামরুল ইসলাম ও তানভিরুজ্জামান রনির সঙ্গে মাহবুবুর রহমান রানার ব্যবসায়িক বিরোধ ছিল। বিরোধ নিয়ে এক পক্ষ আরেক পক্ষের ডিসের ক্যাবল কেটে দিত এবং উভয়পক্ষের মধ্যে প্রায়ই মারামারি হতো। এর জের ধরে কামরুল গ্রুপের হয়ে রানা হত্যাকাণ্ডে অংশ নেন তারেক।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরও বলেন, রানাকে হত্যার পর তারেক নিজ বাড়ি চাঁদপুরে পালিয়ে যান এবং নিজেকে তাহের হিসেবে পরিচয় দেন। সেখানে চাষাবাদ শুরু করলেও পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকায় যশোর চলে যান। তার বাড়ি চাঁদপুর হলেও যশোরে বসবাস করতেন আগে থেকেই। সেখানে পরিবহন শ্রমিকের কাজ করতে গিয়ে মাদকের কারবারে জড়িয়ে যান। ২০১৯ সালে ফের ঢাকা শহরে এসে বিভিন্ন জায়গায় নিজেকে তাহের পরিচয় দিয়ে বসবাস করতে শুরু করেন। নানা পেশার আড়ালে মূলত মাদকের কারবার করতেন তিনি।

২০১৪ সালের ২৩ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মগবাজার বাটার গলির মুখে রানাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় রমনা থানায় দায়ের করা মামলার তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের জুনে তারেকসহ ১৪ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দেয় পুলিশ। এই ১৪ জনের মধ্যে তারেকসহ এ পর্যন্ত ১১ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com