পূজায় পুলিশকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে ডিএমপি কমিশনারের নির্দেশ

অপরাধ পর্যালোচনা সভায় শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।
অপরাধ পর্যালোচনা সভায় শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।ছবি : সংগৃহীত

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গা পূজা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন করতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সব ইউনিটকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।

পুলিশ কর্মকর্তা ও ফোর্সদের উদ্দেশে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘ঢাকা মহানগরের পূজামণ্ডপে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটতে পারে, সেজন্য পুলিশের সবাইকে পূজা চলাকালে পরিশ্রম করতে হবে।’

আজ বুধবার ডিএমপির সদর দপ্তরে মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় গত আগস্ট মাসে সংঘটিত বিভিন্ন অপরাধ, মামলাসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। সংঘটিত ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত কার্যক্রমের সর্বশেষ অবস্থা এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ ঠেকাতে মাঠপর্যায়ে দায়িত্ব পালনকারী কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘এ বছর পূজামণ্ডপে আনসার সদস্য স্থায়ীভাবে থাকবে। পুলিশকেও পূজা চলাকালে পূজামণ্ডপে অবস্থান করে দায়িত্ব পালন করতে হবে।’

অপরাধ পর্যালোচনা সভায় শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।
ডিএমপির পাঁচ থানায় নতুন ওসি

রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বাধা নয়

সভায় ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম আরও বলেন, ‘রাজনৈতিক কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করলে পুলিশ বাধা দেবে না।’ তবে, তিনি এও বলেন, রাজনীতির নামে যারা আগুন সন্ত্রাস করবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শফিকুল ইসলাম জানান, রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সংঘাত বাড়ানোর জন্য কিছু মানুষ কাজ করে। তাদের বিষয়েও পুলিশকে সতর্ক থাকতে হবে। মিছিল-মিটিংয়ে যাতে কোনো ধরনের প্রাণহানির ঘটনা না ঘটে, সে দিকেও লক্ষ্য রাখতে বলেন তিনি।

এ ছাড়া গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিল, মামলা তদন্ত, চোরাই গাড়ি উদ্ধার, মাদক উদ্ধার ও মূলতবি মামলা নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে আরও গুরুত্ব দিতে নির্দেশ দেন পুলিশ কমিশনার। ইভটিজিং প্রতিরোধ ও মাদক কারবারিদের গ্রেপ্তারে কাজ করার কথাও বলেন তিনি।

সভায় ডিএমপির ৫০ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) থেকে শুরু করে বিভিন্ন ক্রাইম বিভাগ, গোয়েন্দা বিভাগ ও ট্রাফিক বিভাগের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় ঢাকা মহানগরের আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানসহ ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এবারও শ্রেষ্ঠ পুলিশ অফিসারদের পুরস্কৃত করেন ডিএমপি কমিশনার।

অপরাধ পর্যালোচনা সভায় শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের সময় নিয়ে কেন্দ্রে যাওয়ার অনুরোধ পুলিশের

এদিকে, আগস্ট মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় আটটি ক্রাইম বিভাগের মধ্যে যৌথভাবে প্রথম হয়েছে তেজগাঁও বিভাগ ও মিরপুর বিভাগ।

নয়টি গোয়েন্দা বিভাগের মধ্যে প্রথম হয়েছে গোয়েন্দা গুলশান বিভাগ এবং আটটি ট্রাফিক বিভাগের মধ্যে প্রথম হয়েছে ট্রাফিক লালবাগ বিভাগ।

এ ছাড়া ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পিআর বিভাগসহ ১০টি বিভাগ এবং বিভিন্ন পদমর্যাদার ১২০ জন কর্মকর্তা ও ফোর্সকে বিশেষ পুরস্কার দেওয়া হয়।

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ক্রাইম) বিপ্লব বিজয় তালুকদারের সঞ্চালনায় অপরাধ পর্যালোচনা সভায় অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) এ কে এম হাফিজ আক্তার, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান, অতিরিক্ত কমিশনার (সিটিটিসি) মো. আসাদুজ্জামান, অতিরিক্ত কমিশনার (লজিস্টিকস, ফিন্যান্স অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট) সৈয়দ নুরুল ইসলাম, অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com