আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গ্রাহকের কোটি টাকা আত্মসাৎ

সিআইডির হাতে গ্রেপ্তার প্রতারক চক্রের তিন সদস্য।
সিআইডির হাতে গ্রেপ্তার প্রতারক চক্রের তিন সদস্য।কালবেলা

‘সিলেজ সাইট’ নামের একটি ওয়েবসাইটে অনলাইন ইনভেস্টমেন্ট ব্যবসার নামে সাধারণ মানুষকে আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কোটি টাকা সংগ্রহ করে একটি প্রতারক চক্র। প্রথমদিকে কিছু মুনাফা দিলেও পরে বেশি বিনিয়োগ সংগ্রহ করে ওয়েবসাইটটি বন্ধ করে দিয়ে বিপুল পরিমাণ টাকা আত্মসাৎ করে চক্রটি।

দুবাই প্রবাসী সানজিদা ও তার স্বামী আশিক এই চক্রের মূলহোতা। তাদের নির্দেশেই গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দেন তিন বাংলাদেশি।

তাদের সহযোগী সেই তিনজন বাংলাদেশিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বুধবার (৩ আগস্ট) বরিশালে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলেন, ৩২ বছরের রনি খান, ২৭ বছরের আরজু আক্তার ও ২৫ বছরের তাসনিম রহমান।

সংক্ষেপে

চক্রটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট, নগদ ও বিকাশ এজেন্টের মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করে। এরপর সেই টাকা দুবাই প্রবাসী সানজিদা ও তার স্বামী আশিকের নির্দেশে বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা জমা করে দেন।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুল আলম বলেন, ‘চক্রটি এই কাজের জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এজেন্ট নিয়োগ করে। তারা নগদ, বিকাশ ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করেন। সাইবার পুলিশ সেন্টারের কাছে এই বিষয়ে তিনটি অভিযোগ আসে।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গত ২৭ জুলাই ‘সিলেজ সাইটের’ মাধ্যমে প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগীরা মানববন্ধন করেন।

সিআইডির কর্মকর্তা বলেন, ‘সাইবার পুলিশ সেন্টারের সাইবার মনিটরিং শাখার তিনটি অভিযোগ প্রাথমিক অনুসন্ধান শেষে বরিশালে অভিযান চালিয়ে ‘সিলেজ ইনভেস্টমেন্ট সাইটের’ তিনজন বাংলাদেশি এজেন্টকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

আসামিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে সিআইডি জানায়, তারা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট, নগদ ও বিকাশ এজেন্টের মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করে। এরপর সেই টাকা দুবাই প্রবাসী সানজিদা ও তার স্বামী আশিকের নির্দেশে বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা জমা করে দেন।

ওই তিন আসামিকে গ্রেপ্তারের সময় তাদের কাছ থেকে জব্দ করা মোবাইল ফোন থেকে বিভিন্ন ব্যাংকে টাকা জমা দেওয়ার ডিপোজিট স্লিপের তথ্য পাওয়া যায়। ৩ থেকে ৪ মাসে তারা প্রায় ৪ কোটির টাকার বেশি পরিমাণ টাকা বিভিন্ন ব্যাংকে জমা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com