আরও ৪ জেলায় ক্যাশলেস লেনদেন চালু হচ্ছে

আরও ৪ জেলায় ক্যাশলেস লেনদেন চালু হচ্ছে

নগদ টাকার ব্যবহার কমাতে রাজধানী ঢাকার বাইরে আরও চার জেলায় বাংলা কিউআর কোডে লেনদেন চালু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এভাবে পর্যায়ক্রমে সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া হবে এই ক্যাশলেস লেনদেন।

এর আগে, রাজধানীর মতিঝিল ও গুলশানে বাংলা কিইআর কোডের মাধ্যমে এই লেনদেন চালু করা হয়েছে। এবার গোপালগঞ্জ, রংপুর, গাজীপুর ও নাটোরে বাংলা কিউআর কোডে লেনদেন চালুর যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই চার জেলায় আগামী ২০ মার্চ বাংলা কিউআর অ্যাপের মাধ্যমে লেনদেন কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার।

গতকাল রোববার মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডারদের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে এ-সংক্রান্ত একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেম বিভাগের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, আগামী বছর থেকে সব লেনদেন কিউআর কোডভিত্তিক করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলা কিউআর (কুইক রেসপন্স) হলো দেশের সব ব্যাংক ও মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (এমএফএস) অ্যাপভিত্তিক লেনদেন নিষ্পত্তির একটি কমন প্ল্যাটফর্ম। এই প্ল্যাটফর্মে যুক্ত যে কোনো ব্যাংক বা এমএফএসের গ্রাহক যে কোনো অন্য কিউআর থেকে পরিশোধ করতে পারেন।

লেনদেনে স্বচ্ছতা বাড়ানো, ঝুঁকিমুক্ত, কম খরচ ও দ্রুত করতে ক্যাশলেস সোসাইটি গঠনের লক্ষ্য নিয়ে এমন ব্যবস্থা প্রবর্তন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখন এই ব্যবস্থায় লেনদেনে উৎসাহিত করা হচ্ছে। আর গত ৮ ফেব্রুয়ারি এক নির্দেশনার মাধ্যমে আগামী ৩০ জুনের পর বাংলা কিউআর ছাড়া আর কোনো কিউআর কোডভিত্তিক লেনদেন ব্যবস্থা না রাখার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলা কিউআর ব্যবহারে দৈনিক সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা লেনদেনের যে সীমা ছিল তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এখন থেকে ব্যাংক বা এমএফএস নিজস্ব ঝুঁকি বিবেচনায় মার্চেন্ট পেমেন্টের ক্ষেত্রে বাংলা কিউআর কোডভিত্তিক একক লেনদেনের সীমা, দৈনিক লেনদেনের সীমা ও সংখ্যা নির্ধারণ করতে পারবে। তবে এ মাধ্যমে সন্দেহজনক বা বৃহৎ অঙ্কের লেনদেনের ক্ষেত্রে ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান থেকে যথাযথভাবে যাচাই করতে হবে।

সংশ্নিষ্টরা জানান, বাংলা কিউআর লেনদেনে প্রাথমিকভাবে ১১টি ব্যাংক ও তিনটি এমএফএস যুক্ত হয়েছে। ব্যাংকগুলো হলো ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ, ইস্টার্ন, ডাচ্বাংলা, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, দ্য সিটি, পূবালী, ইউসিবি, ওয়ান, ব্যাংক এশিয়া ও এবি ব্যাংক। আর তিন এমএফএস প্রতিষ্ঠান হলো বিকাশ, ডাচ্বাংলা ব্যাংকের রকেট ও ইউসিবিএলের উপায়। দেশে বর্তমানে ব্যাংক রয়েছে ৬১টি। আর অনুমোদিত এমএফএস রয়েছে ১৩টি। পর্যায়ক্রমে অন্য সব ব্যাংক ও এমএফএস এ ব্যবস্থায় যুক্ত হবে। এ ছাড়া পেমেন্ট সার্ভিস প্রোভাইডর (পিএসপি) ও পেমেন্ট সার্ভিস অপারেটররা (পিএসও) এখানে যুক্ত হতে পারবেন। দোকানে যে কোনো একটি প্রতিষ্ঠানের কিউআর থাকলে এ ব্যবস্থায় যুক্ত যে কোনো প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক পরিশোধ করতে পারবেন। দোকানদার বা গ্রাহক কারও বাড়তি চার্জ লাগবে না।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
logo
kalbela.com