সড়ক দুর্ঘটনায় বেপরোয়া বাইক

চিঠিপত্র
সড়ক দুর্ঘটনায় বেপরোয়া বাইক

ইদানীং সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে। কোনোভাবেই যেন সড়ক দুর্ঘটনাকে দমানো যাচ্ছে না। সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে ‘রোড সেফটি ফাউন্ডেশন’-এর এক প্রতিবেদন অনুযায়ী চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা ৪০৭টি। এর মধ্যে ১৮২টিই বাইক দুর্ঘটনা। বাইক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৬৯ জন। দেশের মহাসড়কে বাইক দুর্ঘটনার কারণগুলোর মধ্যে অদক্ষ চালক, যত্রতত্র পার্কিং, ওভারটেকিং, মোবাইলে কথা বলা, হেডফোনে গান শোনা, অনিয়ন্ত্রিত গতি, ট্রাফিক সাইন না মানা, পুরোনো যন্ত্রাংশ ব্যবহার ইত‍্যাদি অন্যতম।

অনিবন্ধিত হাজারো মোটরসাইকেল মহাসড়কে সটান বুকে চলছে। মোটরসাইকেল চালকদের অধিকাংশই আইনশৃঙ্খলা বা নিয়মের ধার ধারে না। নিজেদের খেয়ালখুশিমতো চলার ফলে রাস্তায় এমন পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। ‘পরিবহন আইন ২০১৮’-এ ফুটপাতে মোটরসাইকেল চালালে সর্বোচ্চ তিন মাসের কারাদণ্ড এবং ৩৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান থাকলেও আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকায় সড়কের শৃঙ্খলা কোনোমতেই ফেরানো সম্ভব হচ্ছে না। অনতিবিলম্বে এ যানবাহনটি ব্যবহারে বিদ্যমান আইনের সঠিক প্রয়োগ দরকার। বিশেষজ্ঞদের মতে, অপ্রাপ্তবয়স্কদের মোটরসাইকেল চালনায় বিধি-নিষেধ আরোপসহ লাইসেন্স, প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও ট্রাফিক আইন সম্বন্ধে সচেতন করতে অভিভাবক ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।

মাহমুদুল হক হাসান

শিক্ষার্থী, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
kalbela.com