লেপার্ড-২ ট্যাঙ্ক পাচ্ছে ইউক্রেন

বিশ্ববেলা ডেস্ক
লেপার্ড-২ ট্যাঙ্ক পাচ্ছে ইউক্রেন

অবশেষে লেপার্ড-২ ট্যাঙ্ক পাচ্ছে ইউক্রেন। চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি আলোচিত বিষয় জার্মানির অত্যাধুনিক লেপার্ড-২ ট্যাঙ্ক। রুশ সেনাদের প্রতিহত করতে জার্মানির কাছে দীর্ঘদিন ধরেই এ ট্যাঙ্ক চাচ্ছে ইউক্রেন। যদিও বার্লিন এ নিয়ে এতদিন অস্বীকৃতি জানিয়েছে। তবে এখন নিজেদের এ সিদ্ধান্ত বদলের ইঙ্গিত দিয়েছে দেশটি। খবর আলজাজিরা ও বিবিসির। স্থানীয় সময় গত রোববার জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালিনা বায়েরবোক ফরাসি টেলিভিশন এলসিআইকে জানান, পোল্যান্ড চাইলে ইউক্রেনকে এ ট্যাঙ্ক দিতে পারবে। জার্মানি এ ক্ষেত্রে আর বাধা হয়ে দাঁড়াবে না। জার্মানির এ ট্যাঙ্ক রয়েছে পোল্যান্ড, ফিনল্যান্ডসহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশের কাছে। এসব দেশের কাছেও এই ট্যাঙ্ক চেয়েছে কিয়েভ। তবে জার্মানির অনুমতি ছাড়া এসব ট্যাঙ্ক তৃতীয় কোনো দেশকে দিতে পারবে না তারা।

জার্মানির আইন অনুযায়ী, যুদ্ধের উদ্দেশ্যে উৎপাদিত অস্ত্রগুলো শুধু ফেডারেল সরকারের অনুমোদন নিয়ে তৈরি, পরিবহন ও বাজারজাত করা যায়। তাই লেপার্ড-২ ব্যাটল ট্যাঙ্ক অন্য কোনো দেশের হাতে থাকলেও সেসব ইউক্রেন বা ভিন্ন কোনো দেশে পাঠাতে হলে বার্লিনের অনুমতির প্রয়োজন হয়। আইনে এ ক্ষেত্রে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার দেশটির চ্যান্সেলরকে দেওয়া হয়েছে।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা জানি এ ট্যাঙ্কগুলো কতটা গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণে এ নিয়ে আমরা মিত্রদের সঙ্গে আলোচনা করছি। আমাদের এ বিষয়ে নিশ্চিত করতে হবে–মানুষের জীবন রক্ষা পাচ্ছে এবং ইউক্রেনের অঞ্চলগুলো পূর্ণ স্বাধীন হচ্ছে। তার এ ধরনের কথা এই ইঙ্গিত দেয়, পোল্যান্ড ছাড়াও ইউরোপের যেসব দেশের কাছে লেপার্ড-২ ট্যাঙ্ক আছে তারা ইচ্ছা করলেই সেগুলো ইউক্রেনকে দিতে পারবে।

মূলত যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের অন্যান্য দেশের চাপে পড়ে ইউক্রেনকে লেপার্ড ট্যাঙ্ক দিতে রাজি হয়েছে বার্লিন। রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা করার পর ইউক্রেনকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র দিয়েছে পশ্চিমা দেশগুলো এবং এখনো দিচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত কেউ ট্যাঙ্ক দেয়নি। ট্যাঙ্ক দেওয়া নিয়ে জার্মানিও গড়িমসি করেছে দীর্ঘদিন। কারণ দেশটির আশঙ্কা, এতে যুদ্ধ আরও ছড়াবে।

এ সম্পর্কিত খবর

No stories found.
logo
kalbela.com