বৈশিষ্ট্যের মিশ্রণ

করণিক আখতার এর ছবি

‘মানুষ’ কোনো দেহ নয়। মানবদেহধারী যেকোনো ব্যক্তির অন্যান্য বৈশিষ্ট্যসমূহের মধ্যে মানুষও একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য, যে বৈশিষ্ট্যটি থাকায় একজন ব্যক্তি একের সঙ্গে অন্যেটির কিম্বা অন্যদের পার্থক্য বা ভিন্নতা বুঝতে পারে। মানুষ শব্দটি ‘বিবেক’-এর সমার্থক এবং ঐ শব্দটি যেকোনো স্বাধীন ব্যক্তিত্বের বিবেচকের সমার্থক বৈশিষ্ট্যকেই প্রকাশ করে।

আবেগও একটি বৈশিষ্ট্য, যেটি বিবেকের মতো স্থির নয়, বরং বেগবান এবং সময়সাপেক্ষে ব্যক্তির আবেগ পরিবর্তনশীল। আবেগ বৈশিষ্ট্যটি যেকোনো ব্যক্তির কর্মী হওয়ার অনুকূলে একটি অনন্য মৌলিক উপাদান।

বিবেক বৈশিষ্ট্যটির কোনো চাওয়া নেই, যেকোনো ব্যক্তির আবেগটাই ঐ ব্যক্তিকে তার চাওয়াগুলো চাওয়ায়।

কেউ আবেগাক্রান্ত হলে পরে, আবেগের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে ঐ ব্যক্তির বিবেক কমতে থাকে, অর্থাৎ তার বিশ্লেষণ এবং বিবেচনার ক্ষমতা কমে। কোনো ব্যক্তির আবেগ খুব বেশি হলে পরে, ঐ ব্যক্তির আচরণে তার মানুষটি থাকে না, বেগবান ব্যক্তিটি অবশেষে উদ্ভ্রন্ত বদ্ধ উন্মাদ রূপে প্রকাশিত হয়। যেকোনো ব্যক্তির মাতাল বা উন্মত্ত বৈশিষ্ট্যটির বিপরীতেই তার মানুষ বৈশিষ্ট্যটির অবস্থান।

‘ওহে করণিক, তুমি জ্ঞানী, গুণী, দক্ষ, মানবিক, পরোপকারী, নীতিবান, নিষ্ঠাবান যা-ই হও, --কখনো অমানুষ হয়ো না, --’ এধরণের উপদেশ আমরা জ্ঞানীদের থেকেই পাই।

অন্যকে অজ্ঞ মনে করার মতো মূর্খতায় যারা আক্রান্ত নন, অর্থাৎ অজ্ঞতার ঘোর অন্ধকারে ডুবে যাননি যারা, --আমরা কেবল তাদেরকেই জ্ঞানী হিসেবে মেনে নিতে পেরে ধন্য, আনন্দিত।

জ্ঞানীদের পাশে থেকে থেকে আমরা আরও জেনে যাই, মানুষ বা বিবেক বৈশিষ্ট্যটির মাধ্যমে যেকোনো ব্যক্তি কেবল বিচারক হতে পারে মাত্র, নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় আবেগ না থাকলে, বিবেকাধিক্যে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তি জগতের কোনো কল্যাণে আসে না।

সম্পূর্ণ মানুষ নয়, বরং মানুষের সঙ্গে কিছুটা উন্মাদনাই জগতের কাম্য।

রঙ্গপুর : ০৩/০২/১২

করণিক : আখতার ২৩৯

ভোট: 
No votes yet