বকবক

Sany Saha এর ছবি

Coming soon...................................

কিছু দিন পর থেকে একটি ধারাবাহিক কিছু লেখতে চেষ্টা করবো হয়তো উপনাস, কবিতা, নাটক, বকবক, পেচাল, যার কোন নাম এখনো ঠিক করা হয়নি........................

Coming soon..........................

Sany Saha এর ছবি

আরো কিছু

আরো কিছু

-------------------------------------------

অজস্র মানুষের ভিড়ে ধাক্কা খেতে খেতে

অবশেষে পথ পেয়ে হারিয়েছি পথ

যে পথের পথে ছিল অপেক্ষা করে

Shipu De Leo এর ছবি

একান্ত আপন কিছু…

তোমার কাছে বোকাই থাকব
ভুল বুঝে সরে যাবে
কিন্তু আমি কাছে টানব !

খুব কাছাকাছি আসব আমরা
হয়্ত আমি দু-একটা ভুল করেও ফেলব !
তুমি লজ্জায় লাল হয়ে যাবে
আমি বোকার মতই বলব,"কি পাগলের পাগলামি ভাল লাগছে তো ?

তুমি আবার লজ্জা পাবে,
আমার চোখের আড়ালে মুখ ঘুরিয়ে রাখবে
আমি আবার বোকার মতো তোমার হাত ধরতে চাইব !
তুমি আঙ্গুলের মাঝে আঙ্গুল শক্ত করে রেখে
কপট রাগ দেখাতে চাইবে !

আমি হাসব
আর তুমি আবার লজ্জায় লাল হয়ে যাবে

Sany Saha এর ছবি

বাজে মাইয়া

এক তরুণী মেয়ে দোকানে গেল

Sany Saha এর ছবি

The Cow..................

আমিও তাই চাই--

Shipu De Leo এর ছবি

নামহীন

পড়ন্ত বিকেলে রোদের কনা এসে পুকুরের পানিতে পড়ছে।রোদের কারনে জলের কণাগুলো দিকে তাকালে চোখ বেঁধে যায় !
গোধূলীর শেষ প্রহর ধীরে ধীরে সন্ধ্যা নেমে পরে আর স্নিগ্ধ বাতাস এক অনিন্দ্য সুন্দর পরিবেশের সৃষ্টি করেছে । আবেগী কন্ঠে বললাম

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

হুজুগে ধ্বংস, হুজুগে বাঁচা

সেদিন বাজারে একজন পরিচিত ভদ্রলোক জিজ্ঞাসা করলেন, ‘শুনেছেন এবছর ২১শে ডিসেম্বর নাকি

তাপস শর্মা এর ছবি

ভাষার কাছে ক্ষমা।

ভাষার জন্য, একুশকে নিয়ে কিছু লিখতে ইচ্ছে করে। কিন্তু কলম চলেনা। ভাষাকে নিয়ে কখনো কখনো নিরালায় বসে কাঁদতে ইচ্ছে করে, পারিনা। ভাষাকে নিয়ে 'খেঙরার নোংরামি' দেখতে দেখতে হাতে হাতিয়ার তুলে নিতে ইচ্ছে করে, পারিনা। আমার ভাষার বুকে কখনো
কখনো ধেয়ে আসে সব অরাজকতার ঢেউ, চুপচাপ আমি আত্মসমর্পণ করে দেই।

এর পরেও কি আমি বলতে পারি - আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি।

তাপস শর্মা এর ছবি

পকেট ফুটো

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস। মেসি কলকাতার যুবভারতী মাঠে দাপাইতাছে। সারা দেশের মানুষ এবং মিডিয়াকূল মেসির হেসিতে(থুড়ি) হাসিতে ওতলা হইয়া ৩২ খান দাঁতের প্রদর্শন করতে ব্যস্ত। আর ওই সন্ধ্যায় আমি খেলার মজা উপভোগ করব ভাবছিলাম। কিন্তু আল্যেজ পোড়া কপাল আমার। চিফ এর ফোন! গন্তব্য মোহনপুর। জিজ্ঞাইলাম, ক্যান ? উত্তরে হেই বেডা যা কইল তাতে বুঝলাম আজকের মত আমার খেলা দেখা পটলে উঠছে। অতঃপর, দে ছুট। মনে মনে চিফ এবং সাংবাদিকতা প্রোফেশানের গুষ্ঠিশ্রাদ্ধ করতে করতে তাড়াতাড়ি সিটি বাসে উঠে পড়লাম।

Subscribe to বকবক